অনুমতি ছাড়া গর্ভপাত ঘটানোর মামলায় কারাদণ্ড

0
31
Dinajpur_District

Dinajpur_Districtদিনাজপুরে ইচ্ছার বিরুদ্ধে পাঁচ মাসের অন্তঃসত্বা এক তরুণীর গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগে ডাক্তার ও স্বামীকে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের গাইনি বিভাগের সিনিয়র কনসাল্টেন্ট ও স্বামীকে ৮ বছর করে সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছর সশ্রম কারাদণ্ডাদেশ দেয়।

গতকাল দুপুর ১২ টার সময় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ-২এর বিচারক মাহামুদুল করিম এ রায় দেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, বোচাগঞ্জ উপজেলার সেতাবগঞ্জ এলাকার আমিনুল ইসলামের কন্যা আনিছা বেগমের সাথে একই উপজেলার ইসলামপুর গ্রামের আব্দুল হাকিমের ছেলে মোস্তাফিজুর রহমান পিন্টুর মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয়। এক পর্যায় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দৈহিক মেলামেশা করায় আনিছা বেগম গর্ভবর্তী হয়ে পড়ে। পরে প্রেমিক মোস্তাফিজুর রহমান পিন্টু বিয়ে করতে অপারগতা প্রকাশ করলে প্রেমিকা আনিছা বেগম শিশু নারী নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করে।

মামলা থেকে বাঁচতে মোস্তাফিজুর স্থানীয় ভাবে শালিশ বৈঠকের ব্যবস্থা করে। শালিশের মাধ্যমে আনিছা বেগমকে গত ১৯ এপ্রিল ১৯৯৯ ইং তারিখে বিয়ে করে মোস্তাফিজুর রহমান পিন্টু। তখন মামলা তুলে নেয় আনিছা। এরপর কৌশলে ২০ এপ্রিল ১৯৯৯ থেকে ২২ এপ্রিল ১৯৯৯ ইং তারিখ পর্যন্ত সময় দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসাল্টেন্ট ডা. হযরত আলীর চেম্বারে স্বামী ও ডা. হযরত আলীর যোগসাজসে ইচ্ছার বিরুদ্ধে আনিছা বেগমের ৫ মাসের একটি কন্যা শিশুর ভ্রুণ নষ্ট করে ফেলা হয়।

এই ঘটনায় আনিছা বেগম বাদী হয়ে ৩০ এপ্রিল ১৯৯৯ ইং তারিখে  বোচাগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় আট জন স্বাক্ষীর স্বাক্ষ্য শেষে আদালত মোস্তাফিজুর ও ডা. হযরত আলীকে উপরোক্ত সাজা প্রদান করেন।

কেএফ/