গুগল স্ট্রিট ভিউতে ঢাকা-চট্টগ্রামের দেখা মিলবে মে মাসে

0
78
google-street-view-paris
‘স্ট্রীট ভিউ’তে প্যারিসের আইফেল টাওয়ারের মতোই দেখা যাবে ঢাকা-চট্টগ্রামের নানা স্থাপনা

আগামি মে মাস থেকে অনলাইনেই  রাজধানী ঢাকা এবং বন্দর নগরী চট্টগ্রামের প্যানোরমা চিত্র দেখা যাবে। গুগল ম্যাপের ‘স্ট্রিট ভিউ’ অপসনের সাহায্যে ইচ্ছে মতো ঘুরবেন-ফিরবেন, আর দু’চোখ ভরে দেখবেন এই দুই শহরে বসবাসরত মানুষের শহুরে জীবন, ঐতিহাসিক স্থাপনা এবং প্রাকৃতিক সৌন্দর্য। সম্প্রতি এমন এক সুখবর জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মহা পরিচালক কবির বিন আনোয়ার। খবর বাসসের।

অনলাইনের মাধ্যমে পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চল এবং গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা সম্পর্কে আগ্রহীদের কৌতূহল মেটাতে ২০০৭ সাল থেকে ‘স্ট্রিট ভিউ’ চালু করে টেকনোলজি জায়ান্ট গুগল। এর মাধ্যমে ৩৬০ ডিগ্রি কোণে দৃশ্য দেখা যায়। অর্থাৎ একই স্থানে দাঁড়িয়ে চারপাশের দৃশ্য দেখা সম্ভব। যা সাধারণত প্যানারোমা নামেই সর্বাধিক পরিচিত।

প্রাথমিক অবস্থায় যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন শহরে স্ট্রিট ভিউ’ চালু করে গুগল। স্থানীয় নিরাপত্তা ও ব্যক্তিস্বাধীনতা ক্ষুণ্ন করার অভিযোগে গুগল স্ট্রিট ভিউ নিয়ে পরবর্তীতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেলেও পথ চলার সুবিধায় অল্প দিনেই গুগলের এই সেবাটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। এ পর্যন্ত সুবিধাটির মাধ্যমে সারা বিশ্বের ৪০টি দেশের ৩০০টি শহর দেখা এবং সম্যক ধারণা অর্জন সম্ভব।

বাংলাদেশকেও স্ট্রিট ভিউ’র আওতায় আনার লক্ষ্যে ২০১৩ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ সরকারের সাথে একটি চুক্তিও করে গুগল কর্তৃপক্ষ। এই কার্যক্রমের অংশ হিসেবে প্রাথমিক ভাবে ঢাকা এবং চট্টগ্রামকে স্ট্রিট ভিউ’র আওতায় আনার কাজ শুরু করে গুগল এবং দেশের এই বৃহত্তম এই দুই শহরের প্রায় ১০০টি স্থাপনার প্যানোরমা চিত্র ধারণ করে গুগলের স্ট্রিট ভিউ কার। স্থাপনাগুলোর মধ্যে প্রধান প্রধান স্থান, পর্যটন কেন্দ্র, ঐতিহাসিক স্থাপনা এবং বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থপনা অন্তর্ভূক্ত।

বাংলাদেশ সরকারের অ্যাক্সেস টু ইনফরমেশন প্রকল্পের পরিচালক কবির বিন আনোয়ার জানান, ঢাকা এবং চট্টগ্রামের ছবি তোলার কাজ ইতোমধ্যেই সম্পন্ন করেছে গুগল।

তিনি জানান, সবকিছু স্বাভাবিক থাকলে আগামি মে মাস থেকে এই দুই শহরকে স্ট্রিট ভিউ’র সাহায্য দেখার সুযোগ মিলবে।

তিনি আরও জানান, খুব শীঘ্রই দেশের আরও কয়েকটি শহরকে এই সুবিধার আওতায় নিয়ে আসবে গুগল।

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, স্ট্রিট ভিউ’র আওতায় আসলে বিশ্বে বাংলাদেশের পরিচিত আরও বাড়বে। বিশেষ করে প্যানারোমিক ছবির মাধ্যমে বিশ্বের যেকোনো প্রান্তের আগ্রহী ব্যবহারকারীরা খুব সহজে বাংলাদেশের প্রত্যন্ত এলাকার ছবি দেখতে পাবেন। এ ছাড়া বিদেশি পর্যটকরা পাবেন বাংলাদেশের বিভিন্ন পর্যটনকেন্দ্রের দিকনির্দেশনা। একই সঙ্গে গুগলে দেওয়া বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশি পণ্যের প্রচারও বাড়ানো যাবে।