‘খাদ্য সংকটের কারণে ছড়িয়ে পড়তে পারে গৃহযুদ্ধ’

0
65
food scarcity

food scarcityআগামি ২০৫০ সালের মধ্যে খাদ্য উৎপাদন ৬০ শতাংশ বাড়াতে হবে, অন্যথায় খাদ্যভাবের কারণে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়তে পারে গৃহযুদ্ধ। মঙ্গোলিয়ার রাজধানী উলান বাটরে আয়োজিত এক কনফারেন্সে সম্প্রতি এমনই এক আশংকার কথা জানিয়েছে খাদ্য এবং কৃষি সংস্থা (এফএও)। খবর রয়টার্স বার্তা সংস্থার।

জাতিসংঘের অঙ্গসংগঠন এফএও’র ধারণা করছে, আগামি ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে পৃথিবীর জনসংখ্যা ৯০০ কোটি ছাড়িয়ে যাবে। বর্ধিত এই জনসংখ্যার চাহিদা মেটাতে বর্তমানের তুলনায় ৬০ শতাংশ বেশি খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে হবে। অন্যথায় খাদ্যের অভাবে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে সামাজিক অস্থিরতাসহ গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়তে পারে।

সংস্থাটির আঞ্চলিক মহা-ব্যবস্থাপক হিরোকি কনুমা জানান, উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এ পরিস্থিত সবচেয়ে ভয়ানক রূপ নিতে পারে।

তিনি আরও জানান, শতাব্দীর লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হলে সন্ত্রাসবাদ, যুদ্ধ এবং রাজনৈতিক অস্থিরতা ছড়িয়ে পড়া শুধু সময়ের ব্যাপার।

এফএও জানায়, বর্তমানে পৃথিবীতে প্রায় ৮৪ কোটি ২০ লাখ মানুষ না খেয়ে দিন-যাপন করছে। এর অন্যতম কারণ গত শতাব্দীর আশির দশকে খাদ্য উৎপাদনে অর্জিত প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে না পারা।

এফএও’র মতে, বর্তমানে খাদ্য উৎপাদনে প্রবৃদ্ধির হার দশমিক ৬ থেকে দশমিক ৮ শতাংশ। অথচ, আশির দশকে এই হার ছিল প্রায় ৩ দশমিক ৫ শতাংশ।

সংস্থাটি জানায়, ২০৫০ সালের মধ্যে পৃথিবীব্যাপী খাদ্যাভাব মেটাতে হলে এখনই দশমিক ১ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করা প্রয়োজন।

কিন্তু বিশ্বব্যাপী মিঠাপানির সংকট এই পরিস্থিতিকে আরও কঠিন করে তুলছে বলে জানিয়েছে এফএও। সংস্থাটির মতে, অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতি মোকাবেলায় সুচিন্তিত এবং সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণের কোন বিকল্প নেই।