পদ্মার চরে ঘুড়ি উৎসবে প্রাণের স্পন্দন

0
310
ঘুড়ি উৎসব

ঘুড়ি উৎসবফরিদপুরের সদর উপজেলার ধলার মোড় এলাকার পদ্মা নদীর চরে শুক্রবার বিকালে হয়ে গেল ঘুড়ি উৎসব। আর ঘুড়ি উৎসবকে ঘিরে তৈরি হয়ে ছিল এক আনন্দঘন পরিবেশ।

ফরিদপুর সোস্যাল সার্ভিস ক্লাব আয়োজিত ঘুড়ি উৎসব দেখতে জড়ো হয়েছিল হাজারো নারী পুরুষ। গ্রামীণ জীবনের আকর্ষণীয় ঘুড়ি উৎসব আলোড়িত করেছিল বিনোদন প্রেমীদের।

ফাগুনের সোনালী বিকেলের আকাশ জুড়ে বাহারি ঘুড়ির মেলা। বাতাসের তরঙ্গের সাথে রং বে রংয়ের ঘুড়ির দুরন্তিপনা দেখে বিমোহিত দর্শক। কৌড়, ডোলসহ নানা নামের দুই শতাধিক ঘুড়ি উড়িয়ে ফরিদপুরের পদ্মা নদীর চরের মুক্ত আকাশকে বর্ণময় করতে অংশ নিয়ে ছিল নানা বয়সের মানুষ। বিকেলের সোনা রোদের আকাশ জুড়ে ঘুড়ির মেলা বার বার মনে করিয়ে দিচ্ছিল বাঙ্গালীর নিজস্ব সংস্কৃতিকে।

প্রাণের টানে ঘুড়ির নাটাই হাতে নিয়েছিল বয়োবৃদ্ধরা। বার্ধক্য ছাপিয়ে যেন ফিরে গিয়েছিল ফেলে আসা যৌবনে।

এক সময় গ্রামগঞ্জের সর্বত্র ঘুড়ি উড়ানোর প্রচলন থাকলেও এখন আর তা নেই। যান্ত্রিক সভ্যতার নগ্ন থাবায় বিলুপ্ত প্রায় গ্রামীণ বাহারি আনন্দময় খেলা।

ফরিদপুরের ঘুড়ি উৎসব হাজারো মানুষকে বোঁধেছিল এক সুতোয়। ক্ষণিকের জন্যে হলেও আবদ্ধ করেছিল ভালবাসার বন্ধনে। আয়োজকদের দাবি, যান্ত্রিকতা আর ভিনদেশী অপসংস্কৃতি থেকে সমাজকে মুক্ত করেতে বিভিন্ন এলাকায় বার বার এধরণের মনোমুগ্ধকর আয়োজন করা যেতে পারে। আর এ ধরনের আয়োজন সমাজ থেকে অসুস্থতা দুর করে আলোর বিচ্ছুরণ ঘটাতে পারে বলে মনে করেন সুধীসমাজ।

সাকি/