রেলওয়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে রেলমন্ত্রীর বৈঠক

0
53
mojibur rahaman

mojibur rahamanবর্তমান সরকারের ৫ বছরের মেয়াদে রেলওয়ের উন্নয়ন তথা রেলপথে যাত্রীদের উন্নতর সেবা প্রদানের জন্য অগ্রাধিকার ভিত্তিক কর্মপরিকল্পনা ও সুপারিশ গ্রহণ করার উদ্দেশ্যে আজ রেলপথ মন্ত্রীর সভাপতিত্বে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এ সময় রেলপথ মন্ত্রী মুজিবুল হক কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে বলেছেন, দেশ ও জনগণের উন্নয়নের লক্ষ্যে সকলকে সকলের অবস্থান থেকে সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। নিজ নিজ অবস্থান থেকে দেশ ও জনগণের উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ রেলওয়েকে আরও এগিয়ে নিতে হবে।

মন্ত্রী বলেন, যারা মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ রেলওয়ের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে রয়েছেন সকলকে দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে সর্বদা সজাগ থেকে কাজ করতে হবে। তাহলেই জনগণের দোড়গোড়ায় রেলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে। ব্যাপক উন্নয়নের মাধ্যেমে দেশের মনুষের মাঝে রেলকে একটি আধুনিক ও জনপ্রিয় এবং নিরাপদ যানবাহন হিসেবে তুলে ধরাই বর্তমান সরকারের মূল লক্ষ্য।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে আমাদের সম্পদ সীমিত। এই সীমিত সম্পদ দিয়েই আমাদের কাজ করতে হবে। বিগত সময়ে রেলওয়ের নাশকতা প্রতিরোধে রেলওয়ের কর্মকর্তাদের সর্বদা সজাগ থেকে সার্বক্ষণিক কাজ করায় মন্ত্রী কর্মকর্তাদের বলেন, আপাদের সহযোগিতার কারণেই আজ সন্ত্রাসীদের সকল পারিকল্পনা বেস্তে গেছে। এভাবেই সকলকে দায়িত্ব পালন করলে বাংলাদেশ রেলওয়ে বিশ্বের অন্যান্য আধুনিক রেল পরিবহনের সাথে পাল্লা দিতে বেশি সময় লাগবে না।

মন্ত্রী বলেন, কোনো কর্মকর্তা বা কর্মচারীর বিরুদ্ধে যদি কোনো প্রকার দূর্নীতির অভিযোগ উঠে এবং তা যদি প্রমাণিত হয় তবে সে সকল কর্মকর্তাকে বহিষ্কারের মতো কঠোর পদক্ষেপ নিতেও বাংলাদেশ রেলওয়ে বিলম্ব করবে না। তাছাড়া, তার বিরুদ্ধে সকল প্রকার আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করে তাকে জনসম্মূখে আনা হবে বলেন মন্ত্রী।

সভায় আলোচনা হওয়া বিষয়গুলোর মধ্যে তিনটি ধাপের পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা করা হয় তার মধ্যে স্বল্পমেয়াদী, মধ্যমেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার বিষয়গুলো তুলে ধরা হয়।

স্বল্প মেয়াদী পরিকল্পনার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হিসেবে আলোচনায় আসে বিদ্যমান সকল শূন্য পদে লোক নিয়োগের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। যাত্রীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোড়দার করা হবে। বন্ধ ষ্টেশনসমূহ চালু করা হবে। প্রত্যক ষ্টেশন ও ট্রেনের পরিষ্কার-পরিছন্নতা নিশ্চিত করা হবে। পুরাতন ২ হাজার ৫’শটি চেয়ার কোচের সিট পরিবর্তন করা হবে। দূর্ঘটনা রোধকল্পে লুপ লাইনগুলো যথাযথভাবে সংস্কার ও পুনর্বাসন করা হবে এবং বাংলাদেশ রেলওয়ের মাস্টারপ্ল্যান আপডেট করা হবে। মধ্যমেয়াদী পরিকল্পনার মধ্যে চলমান প্রকল্পসমূহ বিশেষ করে ঢাকা-চট্টগ্রাম সেকশনে ডাবল লাইন নির্মাণের প্রকাল্পসমূহ দ্রুত সম্পন্ন করা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত প্রকল্পসমূহ বাস্তবায়ন করা হবে। রেলওয়ে ওয়ার্কসপসমূহের উন্নয়ন। এডিবি‘র অর্থায়নের বাংলাদেশ রেলওয়ের সংস্কার প্রকল্পের কার্যাবলী সম্পন্ন করা হবে।

আজ রেলমন্ত্রণালয়ে রেলের ঊর্দ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে এক জরুরী বৈঠকে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল কালাম আজাদ, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক তোফাজ্জল হোসেনসহ রেলপথ মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশ রেলওয়ের সকল ঊর্দ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।