ডিসিসি নির্বাচনের প্রস্তুতি নেই ইসির

0
81
EC

ECউপজেলা নির্বাচন সময়মতো করলেও দীর্ঘদিন ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের (ডিসিসি) নির্বাচনের কোনো প্রস্তুতি নেই নির্বাচন কমিশনের (ইসি)। বাংলাদেশের রাজধানীর দুই সিটি কর্পোরেশন গঠনের দুই বছর পেরিয়ে গেলেও তা এখনো চলছে অনির্বাচিত সরকারি কর্মকর্তাদের পরিচালনার মাধ্যমে।

দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দুইটি সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন কবে হবে? সেই প্রশ্ন এখন সংসদেও।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের অনুপস্থিতিতে কমিশনের মূল দায়িত্ব এখন পালন করছেন মোবারক।

বুধবার তিনি বলেন, সামনে ডিসিসি নির্বাচনের কোনো সম্ভাবনা নেই। যখন উপযুক্ত সময় হবে তখন আমরা এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করবো।

এর আগে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনে সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল ২০০২ সালে। ওই ভোটে মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা। ২০০৭ সাল তার মেয়াদ শেষ হয়। এরপর এটিএম শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন তৎকালীন ইসি দুই দফা ভোটের উদ্যোগ নিলেও আইনি জটিলতায় তা আটকে যায়, মেয়াদ শেষে যাওয়ার সময় এই নির্বাচন করতে না পারার হতাশাও প্রকাশ করে যান তারা।

এর আগেই ২০১১ সালের ৩০ নভেম্বর ৫৬টি ওয়ার্ড নিয়ে দক্ষিণ এবং ৩৬টি ওয়ার্ড নিয়ে উত্তর নামে দুই সিটিতে ভাগ হয় ডিসিসি, যা রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে বিএনপির দাবি। এরপর থেকে অনির্বাচিত প্রশাসক ঢাকার দুই নগর কর্তৃপক্ষে।

কাজী রকিবউদ্দীনের নেতৃত্বাধীন ইসি দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০১২ সালে কোটি মানুষের এই দুই নগরীতে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করলেও আইনি জটিলতায় তা আটকে যায়। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ২০১২ সালের ২৪ মে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। ২০১৩ সালের মে মাসে নির্বাচনের ওপর আদালতের স্থগিতাদেশ উঠে গেলে নতুন করে তফসিল ঘোষণার উদ্যোগ নেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।