শুরা কাউন্সিলেও রেমিটেন্সে ফি আরোপের প্রস্তাব গৃহীত হয়নি

অর্থসূচক ডেস্ক

0
59

প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্সে সৌদি সরকার কোনো ফি আরোপ করবে না বলে  গত সোমবার ঘোষণা দেয়  দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়। অর্থমন্ত্রণালয়ের সেই সিদ্ধান্তের ধাবাবাহিকতায় সৌদি আরবের শুরা কাউন্সিলেও প্রবাসীদের আয়ে ফি আরোপের প্রস্তাবটি বাতিল করা হয়েছে।Shoura-640x425

সৌদি গেজেটের খবরে বলা হয়েছে, কাউন্সিলের ৭৩ শতাংশ সদস্য রেমিটেন্সে ফি আরোপের প্রস্তাবটি বাতিলের পক্ষে রায় দিয়েছেন।

কাউন্সিলের মোট ১১৯ জন শুরা সদস্য এই মৌখিক ভোটে অংশ নেন। এর মধ্যে প্রস্তাবটি বাতিলের পক্ষে ভোট দেন ৮৬ জন সদস্য।  বাকি ৩৩ সদস্য ফি আরোপের পক্ষে ভোট দেন।

ফি আরোপের বিষয়টির সমালোচনা করে এক শুরা সদস্য প্রশ্ন রাখেন, কেন এই ফি? ফি আরোপ করে আমাদের অর্থনীতির এমন কী উন্নতি ঘটে যাচ্ছে?

আব্দুল্লাহ আল মান্নাফ নামের এক শুরা সদস্য বলেন, সরকার এই ইস্যুতে যে প্রস্তাবনা দিয়েছে তা অনেকটা অনুমানে। এই জন্য তারা কোনো স্টাডিই করেনি।

তিনি বলেন, বাইরের দেশের শ্রমিকরা অনেক টাকা বিনিয়োগ করে আমাদের দেশে আসে। কাজ করে। আয় করে। তাদের সেই আয়ে ফি আরোপ করলে বিনিয়োগের কী ফল পেল তারা?

প্রসঙ্গত, গত কয়েক মাস ধরে রেমিটেন্সে ৬ শতাংশ ফি আরোপ করার কথা ভাবছিল সৌদি সরকার। তবে গতকাল সোমবার দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের অফিসিয়াল টুইটবার্তায় জানানো হয়েছে, সৌদি সরকার আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী মুদ্রা প্রবাহের অবাধ নীতিতে বিশ্বাসী।

এর আগে উপদেষ্টা সূরা কাউন্সিল জানিয়েছিল, প্রবাসী রেমিটেন্সের ওপর ৬ শতাংশ ফি ধার্যের প্রস্তাবনা নিয়ে আলাপ আলোচনা চলছে।

এই ফি আরোপ করা হলে সৌদিতে থাকা বাংলাদেশি প্রবাসীদের রেমিটেন্স থেকেও ৬ শতাংশ অর্থ কেটে নেওয়া হতো।

মূলত গত দুই বছরে তেলের টানা দরপতনে মুখ থুবড়ে পড়ে সৌদির অর্থনীতি। নানা সংস্কার এনে সেই অবস্থা থেকে এখন টেনে উঠতে চাইছে দেশটি। আর এই সংস্কারের অংশ হিসেবে প্রবাসীদের রেমিটেন্সে ফি ধার্য করা হচ্ছিল।

জেনারেল অডিটিং ব্যুরোর (জিএবি) সাবেক প্রধান হুসাম আল-আনকারির বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়, ওই প্রস্তাবনায় সৌদিতে বসবাসকারী প্রবাসীদের উপার্জিত অর্থ খরচ করতে উৎসাহিত করতো।

টি