বর্জ্য ডাম্পিংয়ে চসিকের ৫টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন চালু

প্রতিনিধি

0
53
ccc2
এয়ারপোর্ট রোডের ১৪ নম্বর ঘাট এলাকায় ৫টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) উদ্বোধন চসিক মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন।

চট্টগ্রাম শহরের আবর্জনা ও বর্জ্য ডাম্পিংয়ের জন্য নির্মিত ৫টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) চালু করেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)।আজ সোমবার এয়ারপোর্ট রোডের ১৪ নম্বর ঘাট এলাকায় ৫টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) উদ্বোধন চসিক মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে আরবান পাবলিক অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল হেলথ সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের আওতায় এসটিএস তৈরির জন্য অর্থায়ন করেছে এডিবি। প্রায় ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ১২টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশনের মধ্যে ৫টি নির্মিত হয়েছে। এফআইডিসি রোড, এয়ারপোর্ট রোড, সাগরিকা, পোর্ট কানেকটিং রোড, পশ্চিম মাদারবাড়ী বরিশাল কলোনিতে নির্মিত স্টেশনগুলো আজ উদ্বোধন করা হল।

ccc2
এয়ারপোর্ট রোডের ১৪ নম্বর ঘাট এলাকায় ৫টি সেকেন্ডারি ট্রান্সফার স্টেশন (এসটিএস) উদ্বোধন চসিক মেয়র আ.জ.ম. নাছির উদ্দীন।

এসটিএস উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, পরিচ্ছন্ন নগরী বিনির্মাণের লক্ষ্যে রাস্তার সব ডাস্টবিন বা কন্টেইনার ক্রমান্বয়ে অপসারণ করা হবে। এর আগে আধুনিক বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য ডোর টু ডোর আবর্জনা সংগ্রহ ও অপসারণ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এখন ৭টি ওয়ার্ডে এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন হচ্ছে। ধারাবাহিক ভাবে অন্য ওয়ার্ডগুলোতে এ কর্মসূচি বাস্তবায়িত হবে।

তিনি আরও বলেন, ৪১ নম্বর ওয়ার্ডে এয়ারপোর্টসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা থাকায় এ ওয়ার্ডের উন্নয়ন কার্যক্রমকে গুরুত্ব দিয়েছে চসিক। গ্রিন সিটি প্রকল্পের অধীনে এয়ারপোর্ট থেকে সড়কদ্বীপ ও আশপাশের ফুটপাত বিউটিফিকেশনের আওতায় এনে দৃষ্টি নন্দন করা হবে।

নাছির উদ্দীন বলেন, চলমান উন্নয়ন কাজের মধ্যে ব্রিজ, কালভার্ট ও নালা নির্মাণ অন্যতম। এ ওয়ার্ডে জাইকা, এডিপি, এডিবি, থোক ও রাজস্বসহ প্রায় ৫০ কোটি টাকারও অধিক উন্নয়ন কর্মকাণ্ড চলছে। প্রত্যাশিত সময়ের মধ্যে সড়ক, অলি-গলি, নালা-নর্দমা,আলোকবাতিসহ যাবতীয় কার্যক্রম শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন চসিকের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আবুল হোসেন, যুগ্ম সচিব ও প্রকল্প উপ-পরিচালক উত্তম কুমার কর্মকার, ৪১ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছালেহ আহমদ চৌধুরী, চসিকের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ শফিকুল মন্নান ছিদ্দিকী প্রমুখ।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/