অবরোধে ক্রেতাশুন্য পাইকারী কাপড়ের বাজার বাবুরহাট

0
92

Baburhat_norshindi_1টানা অবরোধের কারনে ক্রেতাশুন্য হয়ে পড়েছে দেশের অন্যতম পাইকারী কাপড়ের হাট নরসিংদীর শেখেরচর-বাবুরহাট। দেশের চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় দীর্ঘ ছয় মাস ধরে আশানুরূপ ক্রেতা না পেয়ে অনেকটাই হতাশ এখানকার ব্যবসায়ীরা। বেচাকেনা নেমে এসেছে প্রায় শুণ্যের কোটায়। এতে একদিকে যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন পাইকারী ক্রেতা-বিক্রেতারা, তেমনি উৎপাদন কমে আসায় লোকসানের আশংকায় স্থানীয় বস্ত্রশিল্প মালিকরা।

শেখেরচর-বাবুরহাট বণিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশে দেশের অন্যতম পাইকারী কাপড়ের বাজার নরসিংদীর শেখেরচর-বাবুরহাটে ছোট বড় প্রায় পাঁচ হাজার দেশীয় কাপড়ের দোকান রয়েছে। মাথার টুপি থেকে শুরু করে শাড়ী, লুঙ্গি, গামছা, পাঞ্জাবি, থ্রি-পিস, শার্ট-প্যান্ট, বিছানা চাদর, থান কাপড়সহ প্রায় সব ধরনের দেশীয় কাপড় পাওয়া যায় এখানে। সপ্তাহের শুক্রবার থেকে রোববার পর্যন্ত রাজশাহী, বগুড়া, সিলেট, বরিশাল, জামালপুর, ভোলা, সিরাজগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ময়মনসিংহ, কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, মানিকগঞ্জসহ দেশের নানা প্রান্তের পাইকারী ক্রেতাদের ভীড়ে মুখরিত হয়ে উঠে বাজারটি।

গত রোববার সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, টানা অবরোধের কারনে ক্রেতাশুন্য হয়ে পড়ায় পাল্টে গেছে বাজারের চিরচেনা রূপ, নেই বাজারের গলিতে যানজট, ব্যস্ততা, পণ্য উঠানো-নামানো, ক্রেতা-বিক্রেতার ভীড়। বিক্রেতাদের কেউ ঘুমাচ্ছেন, কেউ সংবাদপত্র পড়ছেন, কেউ কেউ আড্ডা দিচ্ছেন। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতার কারনে দীর্ঘ ৬ মাস ধরে এ অবস্থা বিরাজ করছে বাজারটিতে। আশানুরূপ ক্রেতা না পাওয়ায় বেচাকেনায় নেমে এসেছে ধস। চলমান এ অবস্থার কারনে দিনের পর দিন বসে বসে অলস সময় পার করতে হচ্ছে এখানকার ব্যবসায়ী ও কর্মচারীদের।

বাজারের আরটেক্স শাড়ী ঘরের পরিচালক শেখ মো: রুমন বলেন, বেচাকেনার মন্দাভাবের দীর্ঘ অবস্থা এই হাটের ইতিহাসে এটাই বোধহয় প্রথম। অতীতে কোনদিন আর এমন দীর্ঘদিন ধরে বেচাকেনার ধস নেমেছে মনে পড়েনা। আমরা ব্যবসায়ীরা নোংরা রাজনীতির বলি।

Baburhat_norshindi_2পাকিজা ফেব্রিক্স শো-রুমের বিক্রেতা শংকর সাহা জানান, দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসার মন্দাভাব বিরাজ করছে, বিক্রি নেমে এসেছে শুণ্যের কোটায়। টানা অবরোধের কারনে পাইকারী ক্রেতারা আসতে পারছেন না। বেচাকেনা না থাকলেও দোকান খুলে বসে থাকতে হচ্ছে এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন গুনতে হচ্ছে।

শেখেরচর-বাবুরহাট বণিক সমিতির সহ-সভাপতি আব্দুল বারিক বলেন, সপ্তাহের তিনদিনের হাটে কমপক্ষে সাতশ কোটি টাকা বেচাকেনা হতো এই বাজারে। হরতাল-অবরোধের কারনে এই হাটের বেচাকেনা নেমে এসেছে ৫০ কোটি টাকায়। বাধ্য হয়ে অনেকে দোকান বন্ধ রাখছেন। এ অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য সহিংস রাজনীতি পরিহারের দাবী তার।

নরসিংদীর অন্যতম শাড়ী ও থান কাপড় উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান আবেদ টেক্সটাইলের পরিচালক ও নরসিংদী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা শিল্প মালিকরা মার্কেটের চাহিদা অনুযায়ী পণ্য উৎপাদন করে থাকি। কিন্তু দেশের চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার কারনে বাবুরহাটের বেচাকেনায় মন্দাভাবের কারনে আমাদের পণ্য উৎপাদনে যে ধস নেমে এসেছে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।

দেশের অর্থনীতি রক্ষা ও ব্যবসায়ীদের স্বার্থে  হরতাল-অবরোধ না দেয়ার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছেন এখানকার কাপড় ব্যবসায়ীরা।