যুগের ব্যবধানে প্রতিষ্ঠান প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে চট্টগ্রামে

প্রতিনিধি

0
53
dc-1
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অর্থনৈতিক শুমারি-২০১৩ জেলা রিপোর্ট প্রকাশনা অনুষ্ঠান।

২০০১ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম জেলায় ১ লাখ ৯৪ হাজার ৯২২টি প্রতিষ্ঠান ছিল। ২০১৩ সালে এ জেলায় প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা বেড়ে মোট ৩ লাখ ৮০ হাজার ৫৫০টি হয়েছে। অর্থাৎ ২০০১ সালের পর থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে চট্টগ্রামে প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ১ লাখ ৮৫ হাজার ৬২৮টি বা ৯৫ দশমিক ২৩ শতাংশ বেড়েছে। আর চট্টগ্রামে স্থায়ী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২ লাখ ৮২ হাজার ৬৩০টি।

চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে আজ বৃহস্পতিবার অর্থনৈতিক শুমারি-২০১৩ জেলা রিপোর্ট প্রকাশনা অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) উদ্যোগে ২০০১ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে এ জরিপ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এতে বলা হয়েছে, ২০০১ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে জাতীয়ভাবে ১১০ দশমিক ৮৫ শতাংশ প্রতিষ্ঠান বেড়েছে।

dc-1
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে অর্থনৈতিক শুমারি-২০১৩ জেলা রিপোর্ট প্রকাশনা অনুষ্ঠান।

জেলা রিপোর্ট প্রকাশনা অনুষ্ঠানে জানানো হয়, ২০০১ সাল পরবর্তী এক যুগে চট্টগ্রাম জেলায় নতুন করে গড়ে ওঠা ১ লাখ ৮৫ হাজার ৬২৮টি প্রতিষ্ঠানে প্রায় ১৯ লাখ ৬৮ হাজার ৮৬২ জনের কর্মসংস্থান হয়েছে। ২০০১ সালে চট্টগ্রাম জেলার প্রতিষ্ঠানগুলোতে মোট ৭ লাখ ৪ হাজার ৩৫১ জন ব্যক্তি কাজ করতেন। এ হিসেবে ২০০১ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে ওই জেলায় ১২ লাখ ৬০ হাজার ৫১১ জনের বা ১৭৯ দশমিক ৫৩ শতাংশ কর্মসংস্থান বেড়েছে। ২০০১ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম জেলায় কর্মসংস্থান বৃদ্ধির হার ছিল ৬১ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

বিবিএসের জরিপে আরও দেখা যায়, ২০০১ সাল থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে চট্টগ্রামে গড়ে ওঠা মোট প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৫০ দশমিক ৪৩ শতাংশের অবস্থান শহরে এবং ৪৯ দশমিক ৫৭ শতাংশের অবস্থান পল্লী এলাকায়। ২০০১ সালের আগের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ৬১ দশমিক ৬৮ শতাংশের অবস্থান ছিল শহরে এবং ৩৮ দশমিক ৩২ শতাংশের অবস্থান ছিল পল্লী এলাকায়।

বিভাগীয় পরিসংখ্যান কার্যালয়ের যুগ্ম পরিচালক মো. এমদাদুল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার মো. রুহুল আমীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মো. সামসুল আরেফিন এবং বিবিএসের পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল কাদের মিয়া। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মহিউদ্দিন আহমেদ।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৬ সাল থেকে অর্থনৈতিক শুমারি পরিচালনা করে আসছে পরিসংখ্যান বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো (বিবিএস)। ইতোমধ্যে তিনটি শুমারি করেছে সংস্থাটি।

অর্থসূচক/সুমন/এমই/