এক বছর মেয়াদী প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু

অর্থসূচক ডেস্ক

0
497
pre-primary-education

আনুষ্ঠানিক শিক্ষা শুরুর আগেই লেখাপড়া ও বিদ্যালয়ের প্রতি শিশুর আগ্রহ সৃষ্টির লক্ষ্যে এক বছর মেয়াদী প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এ পর্যায়ে আকর্ষণীয় শিক্ষা সহায়ক নানা উপকরণ, বইয়ের সঙ্গে ছবি, রং, মডেল, হাতের কাজের সঙ্গে ছড়া, গল্প, গান ও খেলার মাধ্যমে শিশুদের শিক্ষা দেওয়া হবে।

শিশুর সুকুমার বৃত্তির অনুশীলন, অন্য শিশুদের সঙ্গে হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলা এবং শৃঙ্খলা সম্পর্কে ধারণা দেওয়াই এ শিক্ষা ব্যবস্থার মূল লক্ষ্য। ৫ বছর পূর্ণ হওয়া শিশুরাই প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা গ্রহণে বিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবে।

pre-primary-educationজ্ঞান-বিজ্ঞান ও আধুনিক প্রযুক্তি নির্ভর একটি উন্নত সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সর্বাত্মক কাজ করে যাচ্ছে সরকার। এর ধারাবাহিকতায় জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষা ও প্রত্যাশাকে ধারণ করে তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে সুনির্দিষ্ট কর্মসূচি ও লক্ষ্য ঘোষণা করা হয়েছে। স্বাধীনতার ৫০ বছর পুর্তি উপলক্ষে ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য ‘ভিশন-২০২১’ ঘোষণা করা হয়েছে।

বাসস জানিয়েছে, নতুন প্রজন্মকে আধুনিক যুগের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ বিশ্বমানের শিক্ষায় শিক্ষিত, আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দক্ষ, নৈতিক মূল্যবোধ সম্পন্ন দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে তৈরির লক্ষ্যে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে।

গ্রাম-গঞ্জের অসংখ্য হত দরিদ্র পরিবারের শিশুরা বই কিনতে না পেরে লেখাপড়ায় পিছিয়ে পড়তো, ঝরে যেত অনেকেই। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের সব স্তরে শিক্ষার্থীদের বিনামুল্যে বই বিতরণের পদক্ষেপ গ্রহণের পর সে চিত্র বদলে গেছে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর উপস্থিতি বৃদ্ধি ও ঝরে পড়া হ্রাসের লক্ষ্যে ২০১০ সাল থেকে বিদ্যালয়ে বই বিতরণ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। বছরের প্রথম কর্মদিবসে শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দিয়ে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছে বর্তমান সরকার। প্রতি বছর ১ জানুয়ারি পাঠ্যপুস্তক উৎসব দিবস পালন করা হচ্ছে।

দেশে মেয়েদের উচ্চ শিক্ষার হার ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। ২০১৬ সালে প্রাথমিক স্তরে প্রায় শতভাগ শিশুকে স্কুলে ভর্তি করানো সম্ভব হয়েছে। সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার মধ্যে একটি অর্জন এটি। প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার ৪৮ শতাংশ থেকে কমে ২১ শতাংশে নেমে এসেছে।

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের দায়িত্বশীল সূত্রে জানা যায়, দেশে বর্তমানে ২২ হাজার ৮৩৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়; ৭ হাজার ৫০৬টি রেজিস্ট্রার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৮৬৯টি কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয়সহ মোট ৩১ হাজার ২০৮টি বিদ্যালয়ে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ৯ হাজার ২০০টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একজন করে শিক্ষককে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

অর্থসূচক/এমই/