জেলা পরিষদ নির্বাচনের আগেই এমপিদের এলাকা ছাড়ার নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক

0
85
ছবি- সংগৃহীত

সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে জেলা পরিষদ নির্বাচনের আগেই কয়েকজন সংসদ সদস্যকে তাদের নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

আজ সোমবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরে ইসি কার্যালয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ। তিনি বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচনের কয়েকজন প্রার্থী ও কয়েকজন সরকারদলীয় সংসদ সদন্য নানাভাবে ভোটারদের প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন বলে লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ধরনের কোনো অনিয়ম সহ্য করা হবে না। আচরণবিধি লঙ্ঘন ও প্রভাব খাটানোর অভিযোগ তাদেরকে নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে বলা হয়েছে।

election
প্রতীকী ছবি

দেশের ৬১ জেলায় (পার্বত্য চট্টগ্রামের ৩ জেলা বাদে) আগামী বুধবার সকাল ৯টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত জেলা ও উপজেলায় স্থাপিত কেন্দ্রে জেলা পরিষদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলবে। দেশে প্রথমবারের মতো আয়োজিত এ নির্বাচনে স্থানীয় সরকারের সিটি, পৌর, উপজেলা ও ইউপি জনপ্রতিনিধিরাই ভোট দেবেন।

শাহনেওয়াজ বলেন, জেলা নির্বাচনকে ঘিরে অনেক এলাকায় সরকারদলীয় সংসদ সদস্য ও প্রার্থীদের বিরুদ্ধে প্রভাব খাটানোর অভিযোগ এসেছে। প্রার্থীরা ভোট কেনা-বেচার চেষ্টায় বিভিন্ন কৌশল ব্যবহারে এবং চাপ দিচ্ছে বলেও অভিযোগ পেয়েছে ইসি। ভোট দেওয়ার পর ভোটারদের ক্যামেরায় ছবি তুলতে এবং ব্যালট পেপারের পেছনে বিশেষ চিহ্ন দিতে বলছেন প্রার্থীরা কেউ কেউ।

তিনি বলেন, আর দুই দিন পরই জেলা পরিষদ নির্বাচন। এর আগেই সংসদ সদস্যদের নির্বাচনী এলাকা ছাড়ার অনুরোধ করছি। অনুরোধ উপেক্ষা করে কেউ প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করলে, আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অনিয়ম করলে কোনো ছাড় দেওয়া হবে না।

ভোটকেন্দ্রে যেকোনো অনিয়ম ঠেকাতে প্রতিটি ভোটকক্ষের সামনে একজন করে নির্বাহী হাকিম রাখা হবে বলে জানান এই নির্বাচন কমিশনার।

মো. শাহনেওয়াজ বলেন, কোনো ভোটার বা জনপ্রতিনিধি ভোটকেন্দ্রে মোবাইল ফোন নিয়ে প্রবেশ করতে পারবেন না। সংশ্লিষ্ট প্রিজাইডিং কর্মকর্তা ভোটারকে তল্লাশি করবেন। ব্যালট পেপারের কোথাও পরিচিতিমূলক চিহ্ন ব্যবহার করলে তা বাতিল হবে। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা ইতোমধ্যে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা প্রশাসক রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তারা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন।

এ নির্বাচনে প্রতিটি জেলায় একজন করে চেয়ারম্যান এবং ১৫ জন ওয়ার্ড সদস্য ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের পাঁচজন সদস্য নির্বাচিত হবেন। ৬৩ হাজারের বেশি ভোটারের এ নির্বাচনে জেলা ও উপজেলায় ওয়ার্ডভিত্তিক ৯১৫টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে।

চেয়ারম্যান পদে ইতোমধ্যে ২১ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ‌্যে কুষ্টিয়ায়  চেয়ারম্যান পদে একজন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পর আদালতের আদেশে তা স্থগিত হয়। নির্দলীয় এ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একক প্রার্থীর নাম ঘোষণা করলেও অনেক জেলায় বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে। নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি ও জাতীয় পার্টি।

অর্থসূচক/এমই/