ইউক্রেন সঙ্কটে বিশ্ব পুঁজিবাজার অস্থির

0
39

uqrain crisisইউক্রেন সঙ্কটে অস্থির হয়ে উঠেছে  আন্তর্জাতিক পুঁজিবাজার। খবর বিবিসি,ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল ও নিউইয়র্ক টাইমসের।

ইউক্রেনের ক্রিমিয়ায় রাশিয়ান সৈন্যের এক তরফা অভিযানে বিশ্বজুড়ে স্নায়ুর চাপ তৈরি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো এর তীব্র সমালোচনা করছে। একে কেন্দ্র করে অঞ্চলটিতে যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে। আর তার প্রভাব পড়েছে পুঁজিবাজারসহ অর্থনীতির সব অঙ্গনে। তবে পুঁজিবাজারেই প্রভাবটা সবচেয়ে বেশি।

সোমবার যুক্তরাজ্যের পুঁজিবাজারে সূচক কমেছে ১ দশমিক ৫ শতাংশ। ইউরোপের পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে ৩ দশমিক ৫ শতাংশ। এছাড়া দরপতনের মধ্যে দিয়ে  দিনটি শেষ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। এদিকে ২৪ জানুয়ারির পর থেকে ওই দিনে ইউরোপের পুঁজিবাজারে সর্বোচ্চ ২ দশমিক ৩ শতাংশ দরপতন ঘটেছে। জার্মান ও ফ্রান্সের পুঁজিবাজারে দরপতন হয়েছে ৩ দশমিক ৪ শতাংশ ও ২ দশমিক ৭ শতাংশ।

অন্যদিকে জাপানের নিক্কেই স্টকে দরপতন হয়েছে ১ দশমিক ৩ শতাংশ। যেখানে হংকংয়ের পুঁজিবাজারে সূচক কমেছে ১ দশমিক ৫ শতাংশ। সেই সাথে মস্কোর পুজিবাজারেও দরপতন ঘটেছে ১১ শতাংশ পর্যন্ত।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, গত চারমাসে স্বর্ণের দাম বেড়েছে ২ দশমিক ৫ শতাংশ। অন্যদিকে তেলের দাম ব্যারেল প্রতি ২ দশমিক ৬ ডলার বেড়ে দাড়িয়েছে ১১২ ডলারে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন,ইউক্রেনে যেভাবে রাজনৈতিক সহিংসতা বেগবান হচ্ছে তাতে করে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীরা তাদের বিনিয়োগ বাঁচাতে হিমশিম খাচ্ছে। তাছাড়া নতুন বিনিয়োগকারীরাও ভয় পাচ্ছেন।

সহিংসতা এভাবে আরও কয়েকদিন চলতে থাকলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের টাকা বাঁচানো মুশকিল হয়ে পড়বে বলে মনে করেন বাজার বিশ্লেষক ক্রেইগ এরলাম ।

অর্থনীতিবিদদের আশংকা, ইউক্রেন সমস্যা নিয়ে পশ্চিমা দেশগুলো রাশিয়ার সাথে সমঝোতায় পৌঁছাতে না পারলে অর্থনৈতিক পরিস্থিতির আরও অবনতি ঘটতে পারে।

উল্লেখ্য,গত ২২ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনের রাশিয়াপন্থী সাবেক প্রেসিডেন্ট ভিক্টর ইয়ানুকোভিচের পতনের পর ঘটনার শুরু।পরবর্তীতে দেশটির ক্রিমিয়া প্রদেশের রাজধানী সিম্পেরোফলে অস্ত্রধারীদের উপস্থিতি পরিস্থিতিকে আরও ঘনীভূত করে তোলে এবং এর কারণ হিসেবে রাশিয়াকে দায়ী করে যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো।

এস রহমান/