দক্ষিণ চীন সাগর থেকে মার্কিন ডুবোযান আটক করেছে চীন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

0
59
south-china-sea
দক্ষিণ চীন সাগরের একটি দ্বীপ।

দক্ষিণ চীন সাগরে চালকবিহীন মার্কিন ডুবোযান আটক করেছে চীন। তবে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সদর দপ্তর পেন্টাগন থেকে দাবি করা হয়েছে, ফিলিপাইনের কাছে আন্তর্জাতিক জলসীমায় তথ্য সংগ্রহ করার সময় চীনের সৈন্যরা ডুবোযানটি ছিনিয়ে নিয়েছে।

চীন সাগরে ডুবোযান আটকের পর থেকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা এবং পেন্টাগনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন বিবৃতি পাওয়া যাচ্ছে। তবে এ বিষয়ে একেবারে নিরব ভূমিকা পালন করছে চীন। এমনকি আটক করা ডুবোযান নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপের বিষয়ে কিছুই জানায়নি বেইজিং।

south-china-sea
দক্ষিণ চীন সাগরের একটি দ্বীপ।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা বলেন, ওশেন গ্লাইডার নামের ওই ডুবোযানটি পানির লবণাক্ততা এবং তাপমাত্রা পরীক্ষার কাজ করে। মার্কিন গবেষণা জাহাজ ইউএসএসএস বোডিচের কাজের অংশ হিসেবে ওই ড্রোন ডুবোযানটি সেখানে মোতায়েন করা হয়েছিল।

ডুবোযানটি ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য চীনের কাছে দাবি জানিয়েছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক প্রতিবাদও জানানো হয়েছে।

অন্যদিকে পেন্টাগন বলছে, ফিলিপাইনের কাছে আন্তর্জাতিক জলসীমায় তথ্য সংগ্রহ করছিল চালকবিহীন ডুবোযানটি। ওই কাজের সময় চীনের সৈন্যরা একটি ছোট নৌকায় নিয়ে ডুবোযানটি ছিনিয়ে নেয়।

তবে ডুবোযানের বিষয়ে বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে এখনও কোনো বিবৃতি পাওয়া যায়নি।

usss
মার্কিন গবেষণা জাহাজ ইউএসএসএস বোডিচ।

প্রসঙ্গত, দক্ষিণ চীন সাগর এলাকাকে নিজেদের দখলে থাকা বলে দাবি করে আসছে চীন। তবে এতে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভিয়েতনাম ও ফিলিপাইনের আপত্তি রয়েছে। অন্যদিকে ওই এলাকা আন্তর্জাতিক জলসীমার অংশ হিসেবে দাবি করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে সবার যাতায়াতের অধিকার রয়েছে বলে মনে করে তারা।

ওই সাগরে একটি কৃত্রিম দ্বীপও তৈরি করছে চীন; যা নিয়ে প্রতিবেশী দেশগুলো এবং যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চীনের উত্তেজনা চলছে। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, ওই দ্বীপে সামরিক অস্ত্র মোতায়েন করা হচ্ছে।

দীর্ঘদিন ধরে চীন নীতির প্রতি সম্মান দেখিয়ে আসছিল যুক্তরাষ্ট্র। তবে নব নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতায় যাওয়ার পর এ অবস্থার পরিবর্তন হতে পারে বলে আশঙ্কা করছে চীন।

অর্থসূচক/এমই/