বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদের কাছে ছুটছে গ্রাহকরা

সৌদির টেলিকম খাত

অর্থসূচক ডেস্ক

0
84
জেদ্দার একটি মোবাইল ফোন সার্ভিস সেন্টারের সামনে গ্রাহকের জন্য অপেক্ষা করছেন এক প্রবাসী

টেলিকম খাতকে শতভাগ ‘বিদেশিমুক্ত’ করেছে সৌদি সরকার। আর এই ফাঁদে পড়েছে বাংলাদেশ, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে যাওয়া প্রবাসীরা। তাদের জায়গায় এখন বসানো হয়েছে স্থানীয়দের। ‘সৌদিকরণ’ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন করা হয়েছে। কিন্তু মোবাইল ফোন দোকানের মালিকরা অভিযোগ করছেন, গ্রাহকরা এখন স্থানীয়দের কাছে নয়, প্রবাসী ফ্রিল্যান্সারদের কাছে ছুটছেন। খবর খালিজটাইমসের।

দেশটির টেলিকম খাতের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে জানিয়েছেন বাংলাদেশ থেকে যাওয়া প্রবাসী পারভেজ জহিরও। তার বাড়ি চাঁদপুর সদরে। তিনি দেশটির টেলিকম খাতে চাকরি করতেন। কিন্তু বর্তমানে বেকার।

জেদ্দার একটি মোবাইল ফোন সার্ভিস সেন্টারের সামনে গ্রাহকের জন্য অপেক্ষা করছেন এক প্রবাসী
জেদ্দার একটি মোবাইল ফোন সার্ভিস সেন্টারের সামনে গ্রাহকের জন্য অপেক্ষা করছেন এক প্রবাসী

পারভেজ জহির বলেন, গ্রাহকরা স্থানীয়দের সেবায় সন্তুষ্ট না। তারা ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতায় ব্যস্ত থাকে। একদিন কাজ করে তো দুইদিন আসে না। তাছাড়া তাদের আচার ব্যবহারও ভালো না; কাজে তেমন অভিজ্ঞতা নেই। যার ফলে গ্রাহকরা বাংলাদেশিসহ এ খাতে কাজ করা প্রবাসীদের কাছেই সেবার জন্য ধরনা দিচ্ছেন। ফোনে যোগাযোগ করে বাইরে থেকে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন।

সৌদিতে টেলিকম খাতে চাকরি থাকছে না বাংলাদেশিদের

তবে এই ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ মোটেও প্রবাসীদের জন্য পর্যাপ্ত নয় বলে জানান জহির। তিনি বলেন, ফ্রিল্যান্স হিসেবে যে কাজ আসে তা দিয়ে বিদেশে পোষায় না। সৌদি সরকারের সিদ্ধান্তে বেকায়দায় পড়তে হয়েছে আমাদের।

সৌদি আরবের টেলিকম খাত থেকে যেসব প্রবাসীর চাকরি চলে গেছে, তারা এখন কী করছে- সে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, চাকরি চলে যাওয়ার পর এখন বসে বসে সময় কাটাতে হচ্ছে অনেকের। সামনের দিনগুলো কীভাবে পার করবো বুঝতে পারছি না। অন্যদিকে, বাড়ি চলে যাওয়ার চিন্তাও করতে পারছি না। কারণ, বাড়ি চলে গেলে যে টাকা খরচ করে এসেছি তা উঠাতে পারবো না; কর্জের টাকাও শোধ হবে না। তবে অনেকেই কাজ না পেয়ে বাড়ি চলে যাচ্ছে বলে জানান তিনি।

এদিকে সৌদি সরকারের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে স্থানীয়রা। কারণ তাদের কর্মসংস্থান বেড়েছে। তবে প্রবাসীদের প্রতি স্থানীয় গ্রাহকদের এই ঝোঁক দেশটির টেলিকম খাতের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

হামাদ আল জুবাইদি নামের এক দোকানি জানান, টেলিকম খাত থেকে প্রবাসীদের হঠানো হলেও জেদ্দার বাজার এখনো তাদের দখলে। তারা এ বাজারের মার্কেট প্লেয়ার হিসেবে কাজ করছে। অনেক দোকানি এখনো এ কাজে সৌদিদের নিয়োগ দিতে চাচ্ছে না। তারা অভিজ্ঞতা থাকা সত্ত্বেও সৌদির তরুণদের ফিরিয়ে দিচ্ছে। চক্রান্তের ফাঁদে পড়ে এ খাত থেকে বিদেশিদের হঠানো হয়েছে বলে অভিযোগ তার।

অর্থসূচক/শাহীন