দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনেও এগিয়ে বিএনপি

0
37
উপজেলা নির্বাচন

উপজেলা নির্বাচনপ্রথম দফার ন্যায় দ্বিতীয় দফা উপজেলা নির্বাচনেও এগিয়ে রয়েছে বিএনপি। ১১৫টি উপজেলার মধ্যে ১০৮টিতে  নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয়েছে। এসব উপজেলার মধ্যে ৫১টিতে বিএনপি ও ৪২টিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান জয়ী হয়েছেন। এছাড়া, জামায়াত ৮টি ও বিদ্রোহী ও অন্যান্য প্রার্থীরা ৮টি উপজেলায় জয়ী হয়েছে।

বৃহস্পতিবার চতুর্থ উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় দফায় বিক্ষিপ্ত সহিংসতায় ১১৫টি উপজেলায় ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। এসব উপজেলার আট হাজার ১৩১টি কেন্দ্রে  সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে। এ সময় দেশের বিভিন্ন এলাকায় নানা সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে। বেশ কিছু এলাকায় ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়েছে।

নির্বাচনের পরিবেশ না থাকায় নোয়াখালী সদর উপজেলার সব কয়টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া, সিরাজগঞ্জের তাড়াশের একটি, বরিশাল সদরের ১১টি, ফরিদগঞ্জের ৮টি ও ফেনী সদরের একটি ভোট কেন্দ্রের ভোট গ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে মোট ২১টি ভোট কেন্দ্র স্থগিতের খবর দিলেও স্থানীয়ভাবে প্রিসাইডিং কর্মকর্তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী এই সংখ্যা আরও বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

দেশের ১১৫টি উপজেলায় চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যানের মোট ৩৪৫টি পদে ১৩ শ’রও বেশি প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। আর ভোটার ছিলেন, ১ কোটি ৯৮ লাখ ৫১ হাজার ১৭৬ জন।

দেশের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে এর মধ্যে ঠাকুরগাঁও, যশোর, মুন্সীগঞ্জ, ফেনী, বরিশালসহ বেশ কিছু উপজেলায় সহিংসতা-সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গীতে দল বেঁধে ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা দেওয়ায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ভোটারদের সংঘর্ষে অন্তত ৩৯ জন আহত হয়েছে।

এর আগে, ১৯ ফেব্রুয়ারী ৯৮টি উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ফল ঘোষণা করা হয় ৯৭টি উপজেলার। এর মধ্যে বিএনপি ৪৪টি, আওয়ামী লীগ ৩৪টি, জামায়াত ১২টি, জাতীয় পার্টি একটি ও ৬টি উপজেলায় অন্যরা জয়ী হন।