পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও সাবসিডিয়ারির বিনিয়োগ হবে মূলধনের ৫০শতাংশ

0
65
Share Taka
Share Taka

Share_Taka_2পুঁজিবাজারে ব্যাংক ও তার সহযোগী প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগের সীমা বেঁধে দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। নিজস্ব পোর্টফোলিও বিনিয়োগ, সাবসিডিয়ারি বা সহযোগী প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ, মার্জিন ঋণ, ব্রিজ লোন-এসব মিলিয়ে মোট বিনিয়োগ মূলধনের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারবে।

ব্যাংক ও তার সহযোগী প্রতিষ্ঠানের বিনিয়োগ সীমা বেঁধে দিয়ে মঙ্গলবার একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আগে কেন্দ্রীয় ব্যাংক শুধু মূল ব্যাংকের বিনিয়োগ সীমা বেঁধে দেয়। এককভাবে মূল ব্যাংক তার মোট মূলধনের সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ পর্যন্ত বিনিয়োগ করতে পারবে। ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন, বিধিবদ্ধ সঞ্চিতি, প্রিমিয়াম আয় ও অবন্টিত মুনাফার সমন্বয়ে মোট মূলধন গণ্য হবে।

কোন কোন খাতের বিনিয়োগ পুঁজিবাজারে ব্যাংকের মোট হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হবে তাও বলা হয়েছে প্রজ্ঞাপনে। প্রজ্ঞাপন অনুসারে ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি কোম্পানি বা কোম্পানিসমূহ কতৃর্ক পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে গঠিত কোন প্রকার তহবিলে দেওয়া চাঁদা, সাবসিডিয়ারি কোম্পানি বা কোম্পানিসমূহ কতৃর্ক ধারণকৃত সকল প্রকার শেয়ার, ডিবেঞ্চার, কর্পোরেট বন্ড, মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট এবং অন্যান্য পুঁজিবাজার নিদর্শনপত্রের বাজারমূল্য; সাবসিডিয়ারি কোম্পানি বা কোম্পানিসমূহ কর্তৃক গ্রাহককে প্রদত্ত মার্জিন ঋণের স্থিতি; ভবিষ্যৎ মূলধন প্রবাহ বা শেয়ার ইস্যুর বিপরীতে সাবসিডিয়ারি কোম্পানি বা কোম্পানিসমূহ কতৃর্ক বিভিন্ন কোম্পানিকে প্রদত্ত ব্রীজ লোন ।

যেসব ব্যাংকের নিজস্ব ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানের মোট বিনিয়োগ আইনী সীমার বেশি তাদেরকে আগামি ২০১৬ সালের ২১ জুলাইয়ের মধ্যে তা নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে নামিয়ে আনার সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে।