‘‘ন্যায্য দাম পাবো না জানলে আলু চাষ করতাম না’

0
67
Potato

Potatoতপ্ত রোদে পুড়ে, খেয়ে না-খেয়ে, সন্তানদের নিয়ে কষ্ট করে আলু চাষ করেছি। এত কষ্ট করার পরও আলুর ন্যায্য দাম পাবো না এটা বুঝতে পারলে কোনোভাবেই আলু চাষ করতাম না। এমন হতাশার কথাগুলো বললেন বগুড়ার আলু চাষি রওশন আরা বেগম।

মঙ্গলবার নারী কর্মজীবি মহিলা আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এই হতাশার কথা প্রকাশ করেন।

উজ্জ্বল কুমার নামে আরেক চাষি বলেন, আলু উৎপাদনে বিঘা প্রতি যে খরচ হয়েছে বর্তমানে আলু তুলে বাজারে বিক্রি করল বিঘা প্রতি ৫ হাজার টাকা থেকে ৭ হাজার টাকা ক্ষতি হবে।

এ সময় নারী কর্মজীবী মহিলারা বলেন, যেখানে রাজধানীর নিত্যপণ্যের বাজারে চালের দাম বাড়ছে কিন্তু আলুর দাম ক্রমশ কমছে।

গত দুই বছর ধরেই আলু উৎপাদনকারী ক্ষুদ্র কৃষক উৎপাদন খরচই তুলতে পারছে না বরং দিনদিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে আলু চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছে বলে জানান তারা।

তারা আরও বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে যেখানে মৌসুমের শুরুতে জ্বালানি মুল্যবৃদ্ধি বর্ধিত উৎপাদন ব্যয়ের সাথে কৃষকের ওপর আরেক দফা বাড়তি চাপ ফেলেছে। তারা জানান, ৫০ শতাংশের একটি জমিতে আলু চাষ করতে মোট খরচ হয় ২৫ হাজার ৮৬ টাকা যেখানে প্রায় ৪০ বস্তা আলু উৎপাদন হয়। কিন্তু বর্তমানে প্রতি বস্তা আলু বিক্রি করে পাওয়া যাচ্ছে ৪২৫ টাকা। অর্থাৎ মোট দাম পাওয়া যাচ্ছে ১৭ হাজার টাকা। এক্ষেত্রে প্রতি ৫০ শতাংশ জমিতে ৮ হাজার ৮৬ টাকা করে ক্ষতি হচ্ছে।

এ সময় সরকারের কাছে আলু চাষিদের উৎপাদন খরচের সাথে সামঞ্জস্য রেখে আলুর লাভজনক মূল্য নির্ধারণ করে তাদের বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন তারা।

জেইউ/