ছিনতাই হওয়া আসামিদের ধরিয়ে দিতে পুলিশের পুরস্কার ঘোষণা

0
33

Gazipur-JMB-Kasimpur-Jail-Pপ্রিজন ভ্যানে বোমা মেরে জেএমবির তিন জঙ্গিকে ছিনতাইয়ে ঘটনায় পলাতক তিন আসামীকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণা করেছে পুলিশ। পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে পলাতক সালাউদ্দিন, মিজান ও রকিবকে ধরিয়ে দিলে মাথাপিছু দুই লাখ করে অর্থ পুরস্কার দেওয়া হবে।

এদিকে ওই ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে টাঙ্গাইল থেকে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। সখীপুর থানা পুলিশ জানায় ময়মনসিংহ থেকে আসামি ছিনিয়ে নিয়ে মাইক্রোবাসে করে দ্রুতগতিতে ঢাকার দিকে যাওয়ার পথে সখীপুরের পৌর এলাকার কাছে প্রশিকা নামক স্থানে তাদের গাড়ি একটি সিএনজিকে ধাক্কা দেয়। এ সময় গাড়িতে থাকা পলাতক আসামিরা দ্রুত স্থান ত্যাগ করে।

পরে সেখান থেকে গাড়ি চালক মো. জাকারিয়াকে একটি পিস্তল, পাঁচ রাউন্ড গুলি ও ছয়টি ককটেলসহ আটক করেছে পুলিশ। এসময় জঙ্গিদের ব্যবহৃত গাড়িটিও জব্দ করা হয়।

সকাল ১০টার দিকে ময়মনসিংহের ত্রিশালের সাইন বোর্ড এলাকায় পুলিশের প্রিজন ভ্যানে বোমা মেরে এক পুলিশকে হত্যা করে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত দুজনসহ নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবির তিন সদস্যকে ছিনিয়ে নেয় দুর্বৃত্তরা।

এদিকে এই ঘটনায় চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব নাজিম উদ্দিন চৌধুরীকে প্রধান করে গঠিত এই কমিটিতে ডিআইজি (ঢাকা রেঞ্জ) এস এম মাহাফুজুল হক নুরুজ্জামান, ডিআইজি প্রিজন (সদর দপ্তর) টিপু সুলতান ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপ সচিব (জেল-১) সালমা বেগম সদস্য হিসাবে আছেন।

কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

রোববার সকালে গাজিপুর কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে ময়মনসিংহের আদালতে নেওয়ার পথে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, প্রিজন ভ্যানে ময়মনসিংহ সিনেমা হলে বোমা হামলা মামলার আসামি সালাউদ্দিনসহ নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন জেএমবির মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ৩ জন আসামি ছিল।

পুলিশ সূত্র জানা যায়, গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার থেকে আসামি প্রিজন ভ্যানে করে ময়মনসিংহ কারাগারে স্থানান্তর করা হচ্ছিল। পথিমধ্যে অজ্ঞাত পরিচয় দুর্বৃত্তরা প্রিজন ভ্যানে সশস্ত্র হামলা চালায়। দুর্বৃত্তরা পুলিশের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ও পেট্রোল বোমা ছুড়ে মারে। এতে আতিকুল ইসলাম নামে এক পুলিশ কনস্টেবল ঘটনাস্থলেই মারা যান। এছাড়া আরও ২ পুলিশ সদস্য আহত হন। তাদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।