দাবাং থেকেই সালমানের ধারাবাহিকতা, ডাউনহিট 'জয় হো'
বুধবার, ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » বিনোদন

দাবাং থেকেই সালমানের ধারাবাহিকতা, ডাউনহিট ‘জয় হো’

jai ho২৬ জানুয়ারি ২০১৪।  প্রায় দেড় বছর পর পর্দায় সালমন খান। ‘জয় হো’। হাই এক্সপেক্সটেশন। ব্যবসা ভালো হবে ধরে নিয়ে মহাজনের টাকা টিকিট বুক। কিন্ত্ত হায়, সব আশায় কার্বন ডাই অক্সাইড। সিনেমা হলের টিকিটই বিক্রি হচ্ছে না, কে যাবে টিকিট নিতে। যে ছবি সুপারহিট হওয়ার কথা তা আজ ডাউনহিট!

সম্প্রতি মেট্রো মাস্তি নামে একটি অনলাইন সংবাদ সংস্থায় বলা হয়েছে, মুক্তি পাওয়ার ১৭ দিনের মাথায় ছবিটি আয় করেছে ১২০ কোটি রুপি। আর বাকী এই ৮ দিনে কতই বা আয় করবে। সব মিলিয়ে ছবি পারলো না সুপারহিট হতে। কিন্ত এর পেছনে তো কারণ রয়েছে। দাবাং, বডিগাং যেখানে সুপারহিটের খাতায় নাম লিখিয়ে সেখানে দীর্ঘ দেড় বছর পর মুক্তি পাওয়া জয় হো পারলো না কেন?

এই সালমনই তো দাবাং দিয়ে আপনাদের ভালো ব্যবসা দিয়েছিল। তাহলে সালমনের ওপর এত রাগ কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে কলকাতার হলে সিনেমা দেখতে আসা এক দর্শক জানান, ‘একটা দাবাং-এ কী হবে বলতে পারেন। সেই থেকে সালমন খান একই ধরনের ছবি করে চলেছে। কোনও গল্প নেই, খালি মারামারি, কতদিন এভাবে চলতে পারে।

ভেবেছিলাম এতদিন পর ছবি আসছে, ঠিক ভাল হবে। কী প্রচার ছবির। মোদীর সঙ্গে ঘুড়ি ওড়াচ্ছে। আরে মন দিয়ে ছবি করলে, এসব কিছু করতে হয় না। উত্তমকুমার, রাজেশ খান্নাকে কি এসব করতে হয়েছে? সালমন খান যা হাল করল আমাদের। ২৫ হাজার টাকার চুনা লেগে গেল। হাই রিস্ক-এর খেলা এটা। মহাজনকে টাকা ফেরত দিতে পারব না।’

ফাঁকা হল। পোস্টারে শুকনো মালা। আর সামনে হ্যাভ আর হ্যাভ নটস-এর সেই পুরনো চিত্রনাট্য। ‘তাহলে কী মাল্টিপ্লেক্সই ভাতের থালায় টান দিল আপনাদের’, প্রশ্ন করি৷ ‘আরে না না, ওদের আর কটা সিট৷ হল সমস্যা নয়, ছবিই সমস্যা। ভালো ছবি আর তৈরি হচ্ছে কোথায়? না আছে ভালো গল্প, না আছে ভালো অভিনয়। উত্তমকুমার, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, বিকাশ রায়, রাজেশ খান্না, অমিতাভ বচ্চন-এঁদের নামে নাকি ছবি চলত। সবাই এটাই বলত।

কিন্ত্ত ভালো গল্প, পরিচালক না থাকলে কি এঁরা নিজেদের প্রমাণ করতে পারতেন? আর গান? কী ছিল সেই সময়। এখন গানও তো দু’দিন পর কেউ শোনে না।

তিনি বলেন, সব দিক থেকে ছবির অবস্থা খুব খারাপ। সে জন্যই এই হাল।

এস রহমান/

এই বিভাগের আরো সংবাদ