দর্শনার্থীদের পদচারনায় মুখর ফরিদপুরের বই মেলা
সোমবার, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » খুলনা

দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর ফরিদপুরের বই মেলা

ফরিদপুর ম্যাপক্রেতা ও দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর হয়ে উঠেছে ফরিদপুরের বই মেলা। ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের মেলা বই প্রেমীদের বই কেনার খোরাক মেটাচ্ছে।

এ বছর মেলায় ২০টি স্টল নানা বাহারি বইয়ের সম্ভারে সাজানো হয়েছে। মেলা প্রাঙ্গণে আয়োজিত সঙ্গীত, নৃত্য, আবৃত্তিসহ নানা সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠন আনন্দ দিয়েছে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের।

শুক্রবার সকালে ফরিদপুরের জসিমউদ্দীন হল প্রাঙ্গণে বই মেলার উদ্বোধন করা হলেও মূলত সন্ধ্যার পর থেকে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের সমাগম বাড়তে থাকে। স্টলে স্টলে ঘুরে বই দেখে ও কিনে মেলার আনন্দকে ভাগাভাগি করে নেয় আগতরা।

ফরিদপুরে নজরুল গ্রন্থসহ বেশ কয়েকটি স্থানীয় লেখকদের নতুন বই এসেছে।  অনেকেই স্থানীয় লেখকদের বই সংগ্রহ করছেন। বই মেলায় দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন মানুষ। একই সাথে পুরোনো বন্ধুদের সাথে দেখা হওয়ায় মেলবন্ধনের আনন্দে আত্মহারা অনেকেই। মেলায় এসে বই কিনে বেজায় খুশি শিশুরাও। তবে, চাহিদা অনুযায়ী অনেকেই বই পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন।

দোকানিরা বলছেন, মেলার প্রথম দিনেই বেচা কেনা ভালো। হুমায়ূন আহমেদ, জাফর ইকবালের লেখা বই ও শিশুদের বই ভালো বিক্রি হচ্ছে। তবে, আরও বেশি প্রচার করা গেলে ক্রেতা-দর্শনার্থীর সংখ্যা বাড়বে বলে দাবি দোকানিদের।

ফরিদপুরের বইমেলার আলাদা ঐতিহ্যের কারণে অনেকেই এই দিনটির জন্যে অপেক্ষা করে বলে জানালেন লেখক ও গবেষক মফিজ ইমাম মিলন। তিনি বলেন, প্রতিবছরের ন্যায় এবছরও স্থানীয় লেখকদের বই মেলায় আসছে এবং তা বই প্রেমীরা সংগ্রহ করছে।

২১শে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে আরও বেশি মহিমান্বিত করেছে বই মেলার আয়োজন। আর বই মেলার আয়োজনকে বর্ণিল করেছে মেলা প্রাঙ্গণে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আবৃতি, নাচ আর গানে গানে মেলায় আগতদের স্মরণ করিয়ে দিচ্ছে আমার ভায়ের রক্তে রাঙ্গানো দিনের কথা।

কেএফ

এই বিভাগের আরো সংবাদ