ফ্রিল্যান্সার রাসেলের ওপর হামলাকারিদের গ্রেপ্তারের দাবি

ফ্রিল্যান্সার রাসেলের ওপর হামলাকারিদের গ্রেপ্তার ও ফ্রিল্যান্সারদের মৌলিক দাবিসমূহ বাস্তবায়নের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ফ্রিল্যান্সার কমিউনিটি। বৃহস্পতিবার বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে সংগঠনের আহ্বায়ক সাব্বির আহমেদ বলেন, ১৭ ফেব্রুয়ারি সোমবার দেশসেরা আউটসোর্সিং উদ্যোক্তা রাসেল আহমেদের ওপর সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে তাকে গুরুতর আহত করে।

এ সময় সন্ত্রাসীরা তাকে পিটিয়ে আহত ও তার মোটরসাইকেল ভাংচুর করে। বর্তমানে সে ভেড়ামারা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি রয়েছে। হামলার ৪দিন গত হলেও আইন-শৃংখলা বাহিনী সন্ত্রাসীদের এখনও আটক করেনি বলে অভিযোগ করেন তিনি। এছাড়া গত কয়েকদিনে আমিনুর রহমান, ইউনুছ হোসেন, মাসুদ রানা, নিলাভসহ বেশ কয়েকজন ফ্রিল্যান্সার সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, তাদের টাকা, ল্যাপটপসহ মূল্যবান জিনিস সন্ত্রাসীরা নিয়ে গেছেন। কিন্তু আইন-শৃংখলা বাহিনীর কাছে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার পরও কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না তারা। তিনি অভিলম্বে সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি করেন।

ফ্রিল্যান্সার রাসেল দেশের ফ্রিল্যান্সিং খাতের এক উজ্জ্বল নক্ষত্র উল্লেখ করে সংগঠনের আহ্বায়ক নাজির রাফে বলেন, বাংলাদেশে বসেই রাসেল পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি দেশের মানব সম্পদ উন্নয়নের জন্য দক্ষ জনবল গড়ে তোলার কাজ করছেন। রাসেলের ওপর হামলাকারিদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান তিনি।

আহ্বায়ক আমিনুর ইসলাম ফ্রিল্যান্সারদের মৌলিক দাবি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাংলাদেশে ফ্রিল্যান্সিং এর উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। ব্যাংক লেনদেন, ইন্টারনেট সমস্যা, প্রশিক্ষণসহ বেশকিছু সমস্যা কাটিয়ে উঠলে দেশ ফ্রিল্যান্সিং জগতে সম্ভাবনার দ্বার উম্মোচিত হবে। সরকার দেশে ফ্রিল্যান্সিং দিকে নজর দিলে এ খাত থেকে বিপুল আয় ও বেকারত্ব নিরসন সম্ভব। তিনি সরকারকে ফ্রিল্যান্সিং এর মৌলিক সমস্যা নিরসনের দাবি জানান।

জেইউ/কেএফ