রাবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচন ২৪ ফেব্রুয়ারি

rajshahi-university

rajshahi-university_2আগামি ২৪ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এবার নির্বাচনে সাদা ও হলুদ প্যানেল থেকে শিক্ষকরা  মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বুধবার সন্ধ্যায় প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়।

সমিতির কার্যকরী পরিষদের ১৫টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। প্রগতিশীল শিক্ষকরা হলুদ প্যানেল থেকে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এ প্যানেলে সভাপতি পদে ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক কামর্বল হাসান মজুমদার, সহ-সভাপতি পদে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষক মর্ত্তূজা খালেদ, সাধারণ সম্পাদক পদে লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষক প্রণব কুমার পাণ্ডে, কোষাধ্যক্ষ পদে রসায়ন বিভাগের শিক্ষক হাবিবুর রহমান ও যুগ্ম-সম্পাদক পদে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক মশিহুর রহমান প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

বিএনপি- জামায়াতপন্থীদের সাদা প্যানেল থেকে এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন- সভাপতি পদে জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক আফরাউজ্জামান খান চৌধুরী বাবুল, সহ-সভাপতি পদে ভূতত্ত্ব ও খনিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক ইউনুস আহমদ খান, সাধারণ সম্পাদক পদে প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিভাগের শিক্ষক মোহাম্মদ আমীর্বল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ পদে হিসাব বিজ্ঞান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক আবদুল মাজেদ চৌধুরী ও যুগ্ম-সম্পাদক পদে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষক হার্বন-অর-রশীদ।

নির্বাচনের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর জমে উঠেছে শিক্ষকদের প্রচারণা। আওয়ামী লীগসহ প্রগতিশীলদের হলুদ প্যালেন ও জামায়াত-বিএনপিপন্থীদের সাদা প্যানেলে প্রার্থী ও সমর্থকেরা বিভিন্ন আশার বাণী নিয়ে যাচ্ছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে।

এদিকে শিক্ষকদের ন্যায়সঙ্গত অধিকার সংরক্ষণ এবং বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার ক্ষেত্রে গত শিক্ষক সমিতি সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছে বলে প্রচারণা চালাচ্ছেন সাদা প্যানেল। তবে মাতৃকালীন ছুটিসহ বিভিন্ন বিষয়ে গত শিক্ষক সমিতির প্রশংসা করছেন হলুদ প্যানেল।

নির্বাচন পরিচালক মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘ইতোমধ্যে চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন থাকলেও কেউ প্রত্যাহার করেনি। আশা করছি আগামি ২৪ ফেব্রুয়ারি ভালোভাবেই নির্বাচন সম্পন্ন হবে।’

কেএফ