নভেম্বরে ৩৭ কোটি ডলার কিনেছে বাংলাদেশ ব্যাংক
রবিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

নভেম্বরে ৩৭ কোটি ডলার কিনেছে বাংলাদেশ ব্যাংক

dollarরাজনৈতিক অস্থিরতায় বিনিয়োগ কমে যাওয়ায় বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। ফলে ডলারের বিপরীতে টাকার দাম স্থিতিশীল রাখা হুমকির মুখে পড়েছে। এ কারণে শুধু নভেম্বর মাসেই ৩৭ কোটি ডলার কিনেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আর চলতি অর্থবছরের শুরু অর্থাৎ জুলাই থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ৫ মাসে বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংক থেকে মোট ২০২ কোটি ডলার কেনা হয়েছে। এ সময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ রয়েছে এক হাজার ৬০০ কোটি ডলারের ওপরে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

 

চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় আমদানির তুলনায় রপ্তানি কমে যাওয়া এবং উৎপাদনশীল খাতে রেমিটেন্সের ব্যবহার না হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বিভিন্ন ব্যাংকের হাতে প্রচুর মার্কিন ডলার  অলস পড়ে আছে। দীর্ঘদিন এ ধারা বজায় থাকলে ডলারের বিপরীতে টাকার মান কমে যেতে পারে বলে আশংকা করছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২৫ নভেম্বর বাংলাদেশ ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল এক হাজার ৭০৫ কোটি ডলার। গত ৬ নভেম্বর বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভের পরিমাণ ছিল এক হাজার ৭৬০ কোটি ডলার। ৭ নভেম্বর এশিয়ান ক্লিয়ারিং হাউজের সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসের আমদানি বিল পরিশোধ করা হয় ৮৯ কোটি ডলার। ফলে রিজার্ভ নেমে আসে এক হাজার ৬৬৩ কোটি ডলারে।

তথ্য অনুযায়ী, নভেম্বরে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেনা ৩৭ কোটি ডলারের মধ্যে ২১ নভেম্বর ৩ কোটি ৫ লাখ ডলার, ১৮ নভেম্বর ৩ কোটি ডলার, ১৪ নভেম্বর ১ কোটি ৪ লাখ ডলার, ১৩ নভেম্বর ৫ কোটি ৭ লাখ ডলার, ১২ নভেম্বর ৬ কোটি ৮ লাখ ডলার, ৬ নভেম্বর ৬ কোটি ৫ লাখ ডলার এবং ৪ নভেম্বর ৬ কোটি ডলার কেনা হয়েছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা অর্থসূচককে বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতায় বিনিয়োগে উৎসাহি হচ্ছেনা ব্যবসায়ীরা। ফলে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ দিন দিন বেড়েই চলছে। এমনকি বিভিন্ন ব্যাংকের মাধ্যমে আসা রেমিটেন্স (প্রবাসি আয়)-এর কোন ব্যবহার না হওয়ায় ব্যাংকগুলোর হাতে প্রচুর অলস ডলার পড়ে আছে। এ কারণে বাজারে ডলারের পরিমাণ বেড়ে গেলে ডলারের দাম কমে যেতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে। তাই ডলারের দাম স্থিতিশীল রাখতে বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ডলার কেনা হচ্ছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আশপাশের কয়েকটি দেশে ডলারের বিপরীতে মুদ্রার ব্যাপক দরপতন হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের এ পদক্ষেপের কারণে কয়েক মাস থেকে ডলারের দাম ৭৭.৭৫ টাকা স্থিতিশীল রাখা সম্ভব হচ্ছে। নগদ অর্থের পরিবর্তে ট্রেজারি বন্ডের মাধ্যমে ডলার কেনা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংক চলতি অর্থবছরের অক্টোবর মাসে ৫৮ কোটি ৫ লাখ ডলার, সেপ্টেম্বরে ৩২ কোটি ৯ লাখ ডলার, আগস্টে ২২ কোটি ৬ লাখ ডলার এবং জুলাই মাসে ৫১ কোটি ২ লাখ ডলার কেনে। আর ২০১২-১৩ অর্থ বছরে সব চেয়ে বেশি ডলার কেনে বাংলাদেশ ব্যাংক। ক্রয়কৃত এ ডলারের পরিমাণ ছিল ৪০৫ কোটি ৩ লাখ। তবে যে হারে ডলার কেনা হচ্ছে তাতে গত অর্থবছরের এ পরিমাণকেও ছাড়িয়ে যাবার আশংকা করছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা।

এই বিভাগের আরো সংবাদ