পাঁচ মাসেও মূল মার্কেটে ফিরতে পারেনি ওয়াটা ক্যামিক্যাল
রবিবার, ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পুঁজিবাজার

পাঁচ মাসেও মূল মার্কেটে ফিরতে পারেনি ওয়াটা ক্যামিক্যাল

OTC-Stocksদীর্ঘ পাঁচ মাসেও মূল মার্কেটে ফিরতে পারেনি ওভার দ্য কাউন্টারের (ওটিসি)  কোম্পানি ওয়াটা ক্যামিক্যাল। কবেই বা ফিরবে তা বলতে পারছে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ। আর ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) কর্তৃপক্ষ বলছে যে কারণে তারা ওটিসিতে গিয়েছে সে কারণ পুরণ করতে পারলেই তালিকাভুক্ত করা হবে।

 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, তালিকাভুক্তির পর বাধ্যতামুলক কিছু নিয়মের পরিপালন করতে হয়। নিয়ম পরিপালনে ব্যর্থ হলে ওই কোম্পানিগুলোকে ওটিসিতে পাঠানো হয়।

গত ২০০৯ সালের ৬ সেপ্টেম্বর ওটিসি মার্কেট গঠনের পর থেকেই এ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রতিবছর এজিএম না করা, লভ্যাংশ ঘোষণা না করা, আর্থিক প্রতিবেদন সময়মতো বা কখনোই দাখিল না করা, কোম্পানির উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাওয়া অথবা কোম্পানির শেয়ার ডিমেট না হওয়া ইত্যাদি কারনে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কোম্পানিকে ওটিসিতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে কোম্পানিগুলো যদি উপরে উল্লেখিত কাজগুলো নিয়মিত পরিপালন করে তাহলে তাদেরকে আবার তারা মূল মার্কেটে আসতে পারে।

চলতি বছরের নয় জুলাই ওয়াটা ক্যামিক্যালকে মূল মার্কেটে ফেরার জন্য সম্মতি দেয় পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি)।

ওই সময় কোম্পানিটিকে মূল মার্কেটে ফিরিয়ে আনার বিষয়ে বিএসইসির অনাপত্তি কথা ডিএসইকে জানানোর সিদ্ধান্ত হয়। কারণ হিসেবে বিএসইসির পক্ষ থেকে বলা হয়, কোম্পানিটি নিয়মিত এজিএম, বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ প্রদান সহ অন্যান্য বিষয় পরিপালন করছে। ফলে কোম্পানিটি মুল মার্কেটে তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে আর বাধা নেই।কিন্তু এর পর পাঁচ মাস পার হওয়ার পরও মূল মার্কেটে ফিরতে পারছে না কোম্পানিটি।

এবিষয়ে কোম্পানির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে কোম্পানি সচিব শাসছুল হক অর্থসূচককে বলেন, আমাদের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের সমস্যা নেই। এটি বিএসইসি ও ডিএসইর উপর নির্ভর করছে। ডিএসই’র বোর্ড আনুমতি দিলেই মূল মার্কেটে তালিকাভুক্ত হওয়া যাবে।

এবিষয়ে ডিএসই’র সভাপতি আহসানুল ইসলাম টিটু সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও কথা বলা যায়নি।

তবে ডিএসই’র পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন অর্থসূচকে বলেন, যে কারনে কোম্পানিটি ওটিসিতে গিয়েছে, সে কারণ ফুলফিল করলেই তাদেরকে মূল মার্কেটে ফেরাতে আমাদের পক্ষ থেকে কোনো সমস্যা নেই।

তিনি বলেন, এই কোম্পনিটির বিষয়ে ডিএসই’র সর্বশেষ বোর্ড সভাও আলোচনা হয়নি। অন্যদিকে বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মূখপাত্র সাইফুর রহমান দেশের বাহিরে থাকায় তার সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

প্রঙ্গত, ২০০৯ সালে ওটিসির যাত্রা শুরু হবার পর ২০১০ সালে ওটিসি মার্কেটে তালিকাভুক্ত কোম্পানির সংখ্যা দাঁড়ায় ৮০টি। পরবর্তী সময়ে বেসরকারি খাতের ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড (ইউসিবিএল) মামলা-সংক্রান্ত জটিলতা কাটিয়ে বিনিয়োগকারীদের লভ্যাংশ দেওয়ায় সেটি মূল বাজারে ফিরে আসে। এতে ওটিসি বাজারে কোম্পানির সংখ্যা দাঁড়ায় ৭৯টি। পরে আরও ১১ কোম্পানি মূল বাজারে ফিরিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেয় বিএসইসি। এ সময়ের মধ্যে একটি কোম্পানি তালিকাচ্যুত হয়েছে। বর্তমানে এ মার্কেটে ৬৭টি কোম্পানি রয়েছে।

জিইউ/টিআর

এই বিভাগের আরো সংবাদ