অষ্ট্রেলিয়ার অভিবাসন আটক কেন্দ্রে দাঙ্গায় নিহত ১

0
108
immigration cam australia papua new guinea অভিবাসন ক্যাম্প

immigration cam australia papua new guinea অভিবাসন ক্যাম্প পাপুয়া নিউগিনিতে অষ্ট্রেলিয়ার অভিবাসন আটক কেন্দ্রে গত রাতে দ্বিতীয় দিনের মতো দাঙ্গা চলাকালে একজন আশ্রয়প্রার্থী নিহত ও ৭৭ জন আহত হয়েছে। গত রোববার এই আটক কেন্দ্র থেকে বেশ কয়েকজন বন্দী পালিয়ে যাওয়ার পরই দাঙ্গা শুরু হয়। খবর বিবিসির।

আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা খুবই গুরুতর । তার মাথার খুলিতে আঘাত লেগেছে। এছাড়া অন্য ২২ জনকে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে বলে মন্ত্রী জানান।

অষ্ট্রেলিয়ার অভিবাসন মন্ত্রী স্কট মরিসন মানুস দ্বীপের এই হতাহতের ঘটনাকে খুবই মর্মাত্মিক বলে উল্লেখ করেছেন। মরিসনের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএফপি জানায়, এটা খুবই মর্মাত্মিক এবং খুবই বিপজ্জনক পরিস্থিতি। সেখানে জনগন খুবই সহিংস পথে প্রতিবাদ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আশ্রয়প্রার্থীরা আটক কেন্দের বাইরে এসে নিজেদেরকে খুবই ঝুঁকির মধ্যে ফেলে।

রোববার বন্দীরা বেঁড়া, গ্লাসের দরজা ও বিছানাপত্র ভেঙ্গে চুরমার করে দেওয়ার পর অপ্রয়োজনীয় স্টাফদের সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এছাড়া পালিয়ে যাওয়া বন্দীদের খোঁজে তল্লাশী চালানো হচ্ছে।

জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা ও মানবাধিকার গ্রুপগুলো এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

মানুস দ্বীপে অষ্ট্রেলিয়ার আশ্রয়প্রার্থীদের ক্যাম্প রয়েছে। দেশটিতে আশ্রয় দেওয়া একটি স্পর্শকাতর বিষয় সত্ত্বেও অল্পসংখ্যক মানুষ এর সঙ্গে জড়িত। জাতিসংঘ শরনার্থী বিষয়ক সংস্থা ২০১২ সালের এক প্রতিবেদনে জানায়, অষ্ট্রেলিয়া ২০১২ সালে বিশ্বের মাত্র ৩ শতাংশ মানুষের আশ্রয় আবেদন গ্রহন করেছে।

স্কট মরিসন এর আগে জানান,আটক কেন্দ্রের আশ্রয়প্রার্থীদের পাপুয়া নিউগিনিতে পূর্নবাসন করা হবে এবং তৃতীয় কোন দেশে এর সুযোগ থাকবে না। এরপরই আটক কেন্দ্রে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এবং বন্দীরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়ে। এই ঘটনার পরই সংঘাতের সূচনা হয়।