কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই, প্রার্থিতা ফিরে পেল জাহাঙ্গীর

0
35
Jhenidah kaligong upazila election

Jhenidah kaligong upazila electionঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচনে পাল্টে যাচ্ছে ভোটের হিসাব। এ উপজেলায় বিএনপি, আওয়ামী লীগ ও জামায়াত প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী ঠান্ডু চেয়ারম্যান পদে দলের একমাত্র প্রার্থী হিসেবে আদালতের মাধ্যমে প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ায় ভোটের হাওয়ায় নতুন করে পাল উড়তে শুরু করেছে। লড়াই হবে জমজমাট।

কালীগঞ্জ উপজেলা ১টি পৌরসভা ও ১১টি ইউনিয়ণ নিয়ে গঠিত। মোট ভোটার ১৯৩১৩৭ জন। পুরুষ ভোটার ৯৭১৫৬ জন ও মহিলা ৯৫৯৮১ জন। মোট ভোট কেন্দ্র ৮৩টি।

আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী ঠাণ্ডুর সাথে লড়াই হবে বিএনপির হামিদুল ইসলাম, ডা. নুরুল ইসলাম ও জামায়াতের ওলিউর রহমান। বিএনপির দুইজন প্রার্থী থাকায় জামায়াত শক্ত অবস্থানে ছিল কিন্তু আওয়ামী লীগ প্রার্থীর প্রার্থিতা ফিরে আসায় এখন নতুন হিসাব নিকাশ শুরু করছে জামায়াত। এই অল্প সময়ের মধ্যে ভোটারদের কাছে পৌঁছানোর পাশাপাশি ইতোমধ্যে ভোটারদের মনে স্থান করে নেওয়া অন্য প্রার্থীদের জায়গায় জাহাঙ্গীর সিদ্দিকী নিজের অবস্থান করে নিতে পারবেন কিনা তা নিয়ে সংশয় থাকলেও ভরসা তিনি দলের একক প্রার্থী। তাছাড়া জাতীয় পার্টির এসএম আমিরুল ইসলাম ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’র বাবুল হোসেন চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের একক প্রার্থী আজিজুর রহমান, বিএনপির আজিজুল ইসলাম ও ইসরাইল হোসেন, আওয়ামী লীগের মতিয়ার রহমান ও  বিদ্রোহী প্রার্থী হাসনুর রশিদ মন্নু। এক্ষেত্রে  জামায়াতের একক প্রার্থী হওয়ায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামায়াতের অবস্থান খুবই শক্ত। সাধারণ ভোটারা বিজয়ের ক্ষেত্রে জামায়াতের আজিজুর রহমানকে এগিয়ে রেখেছে।

মহিলা ভাইস চোয়ারম্যানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তিথী রাণী বিশ্বাসের সাথে বিএনপির শাহনাজ পারভীনের লড়াই হবে। সাধারণ ভোটাররা বলছেন শাহনাজ পারভীন জামায়াত-বিএনপির একক প্রার্থী হওয়ায় বিজয়ের ক্ষেত্রে অনেকটা এগিয়ে আছে ।

বিগত নির্বাচনের  পোল হওয়া ভোটের প্রায় ৮০ হাজার ভোট ব্যাংক বিএনপির, আওয়ামী লীগের ৬০ হাজার ও জামায়াতের ৪০ হাজার ভোট রয়েছে বলে জনশ্রতি আছে।

চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা বিজয়ী হলে এলাকার উন্নয়নে কাজ করার প্রতিশ্রতি দিচ্ছেন ভোটারদের কাছে। এ ছাড়া সৎ ও যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দিবেন সাধারণ ভোটারাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন। সকল দলের অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে এ নির্বাচন সম্পন্ন হবে এমনটিই আশা প্রার্থী ও সাধারণ ভোটরেদের। নির্বাচনের পরে কে হাসবেন তা দেখার অপেক্ষায় প্রহর গুণছেন কালীগঞ্জবাসী।

সাকি/