রোববার শুরু হচ্ছে গ্যাসের অবৈধ সংযোগ বিরোধী অভিযান

0
112
petrobangla illegal gas connection

petrobangla illegal gas connection গত বছরের শেষভাগে রাজনৈতিক অস্থিরতার সুযোগে তিতাস গ্যাসের প্রায় ২ লাখ অবৈধ সংযোগ হয়েছে। এর বড় অংশই হয়েছে রাজধানী ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুর,সাভার ও নরসিংদী এলাকায়। রোববার অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্নকরণ অভিযানে নামবে পেট্রোবাংলা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

পেট্রোবাংলা সূত্র জানিয়েছে, গত ছয় মাসে প্রায় ৫শ কিলোমিটার অবৈধ পাইপ লাইন বসেছে। তিতাস গ্যাসের মূল লাইন থেকে এসব সাব-লাইনে করে গ্যাসের সংযোগ দেওয়া হয়েছে। অবৈধ সংযোগের বড় অংশই আবাসিক। অর্থাৎ বাসা-বাড়িতে এসব সংযোগ দেওয়া হয়েছে। তবে কিছু সংযোগ ছোট শিল্প এবং হোটেল-রেস্টুরেন্টেও দেওয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে নওশাদ ইসলাম বলেন, রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে গত বছরের মাঝামাঝি সময় থেকে শেষভাগ পর্যন্ত মনিটরিং কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছে। আর এ সুযোগে অসাধু চক্র তৎপর হয়ে উঠে। প্রাথমিক তথ্য অনুসারে আলোচিত সময়ে প্রায় ২ লাখ অবৈধ সংযোগ নেওয়া হয়েছে বিভিন্ন এলাকায়। আমরা এখন এদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করছি। পর্যায়ক্রমে সব এলাকায় অভিযান চালিয়ে অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হবে।

উল্লেখ, দেশে বর্তমানে দৈনিক গড়ে ২২০ থেকে ২২৫ কোটি ঘনফুট গ্যাস উৎপাদন হয়। এর মধ্য তিতাস গ্যাস উৎপাদন করে থাকে ১৭৫ কোটি ঘনফুট গ্যাস।

উল্লেখ, প্রায় তিন বছর বন্ধ রাখার পর আদালতের নির্দেশনায় গত বছরের মাঝামাঝি ফের আবাসিক পর্যায়ে গ্যাস সংযোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। সংযোগ নিতে আগ্রহীদের আবেদনের জন্য দুই সপ্তাহ সময় বেঁধে দেওয়া হলে তার মধ্যে প্রায় দেড় লাখ আবেদন জমা পড়ে। তবে নানা জটিলতায় সব সংযোগ দেওয়া হয়নি। বৈধ সংযোগ বন্ধ থাকাতেই অবৈধ সংযোগের হিড়িক পড়েছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা। তাছাড়া বিল ফাঁকির প্রবণতার ভূমিকা তো আছেই।

তখনই পেট্রোবাংলা ঘোষণা দিয়েছিল, শিগগীরই তারা অবৈধ সংযোগ বিরোধী অভিযানে নামবে। কিন্তু জাতীয় নির্বাচনকে সমনে রেখে রাজনৈতিক অবস্থায় সংঘাতময় হয়ে উঠলে সংস্থাটি কিছুটা গুটিয়ে যায়। তারা আর ওই অভিযানে নামেনি।