ঘি খান, সুস্থ থাকুন

0
423

puraton_অনেকের কাছে ঘি অস্বাস্থ্যকর খাবার হিসেবে পরিচিত। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে খাঁটি ঘি খুবই স্বাস্থ্যকর। সম্প্রতি বিশ্বের অনেক পুষ্টিবিদ এ খাবারের উপকারিতার কথা জানিয়েছেন।

পুষ্টিবিদরা বলছেন আলসার ও কোষ্টকাঠিন্য এবং স্বাস্থ্যকর চোখ ও ত্বকের চিকিত্সায় ওষুধ তৈরিতে ঘি ব্যবহার করা হয়। খবর দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়ার।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘিতে ভিটামিন ‘এ’, ‘ডি’, ‘ই’ ও ‘কে’ রয়েছে। অন্যান্য উপাদানের চেয়ে ভিটামিন ‘এ’ ও ‘ই’-এর চমত্কার উত্স ঘি। তাহলে  আর দেরি নয়, জেনে নেওয়া যাক- ঘি’র অন্যান্য উপকারিতা।

মস্তিষ্কের সুরক্ষায়:

মস্তিস্ক সুরক্ষায় এটি খুব উপকারী। একাগ্রতা বাড়াতে ও স্মৃতিশক্তি ধরে রাখতে ঘি খেতে পারেন। এটি একই সঙ্গে শরীর ও মন ভালো রাখে।

চোখের জ্যোতি:

এটি চোখের জ্যোতি বাড়াতে সাহায্য করে। পাশাপাশি চোখের চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। বিশেষ করে গ্লুকোমায় ভুগছেন এমন ব্যক্তিদের জন্য হিতকর খাবার ঘি।

অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট:

ঘি একটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্টপূর্ণ খাবার। এ উপাদান অন্যান্য খাবারের ভিটামিন ও মিনারেলের সঙ্গে মিশে রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়িয়ে দেয়।

হাড় মজবুতে:

মাংসপেশির সঙ্গে হাড়ের গঠন মজবুত করে ঘি এবং ঘি দিয়ে তৈরি খাবার।

ত্বকের যত্নে ঘি:

ত্বকের যত্মে এটি খুব উপকারী। তাই সুন্দর থাকতে এবং চামড়া টানটান রাখতে নিয়মিত এটি খেয়ে যান।

কোলেস্টেরল সমস্যা সমাধানে:

আপনার যদি কোলেস্টেরলের সমস্যা থাকে, তাহলে মাখনের চেয়ে এটি বেশি উপকারে আসবে। তবে যাদের উচ্চমাত্রায় কোলেস্টেরল রয়েছে, তাদের খাবারের তালিকায় ঘি না থাকাই শ্রেয়।

এ খাবার গ্রহণে পরিমিত হতে হবে। একবারে বেশি খাওয়া যাবে না। দিনে ১০ থেকে ১৫ গ্রাম ঘি খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া অতিরিক্ত ওজন সমস্যায় ভুগলে এ গুরুপাক খাবার এড়িয়ে চলাই ভালো বলে মনে করেন পুষ্টিবিদরা।

এস রহমান/