শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধের দাবি

0
75
প্রেসক্লাব

প্রেসক্লাবট্রেড ইউনিয়নকারী শ্রমিকদের ছাঁটাই বন্ধের দাবি জানিয়েছে গার্মেন্টস শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ। এসময় কারখানা শ্রমিকদের বর্ধিত মজুরি বাস্তবায়নের দাবিও জানায় সংগঠনটি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে, শ্রমিক ছাঁটাই বন্ধ, বর্ধিত মজুরি বাস্তবায়ন, তাজরিনের মালিকের বিচার ও শাস্তি দাবি, রানা প্লাজায় ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ বিষয়ে সমাবেশ ও মানববন্ধনে এই দাবি জানানো হয়।

বক্তারা বলেন, যেসব শ্রমিক কারখানায় ট্রেড ইউনিয়ন করতে এগিয়ে আসছে তাদেরকে মালিকপক্ষ নানা কৌশলে ছাঁটাই করেছে। কারখানায় সুষ্ঠু কাজের পরিবেশের জন্য শ্রমিকদের ট্রেড ইউনিয়ন গড়ার সুযোগ দিতে হবে বলে জানান তারা।তাই মালিকদের কাছে শ্রমিকদের অধিকারে বাধা না দেওয়ার আহ্বান জানান তারা।

নিম্নতম মজুরি বাস্তবায়নে মালিকরা এখন গাঁ ছাড়া ভাব করছে বলে অভিযোগ করেন বক্তারা। তাতে সাভার গাজীপুর, আশুলিয়া, নারায়ণগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার শ্রমিকদের মাঝে অসন্তোষ বিরাজ করছে বলে জানান তারা।

নতুন বর্ধিত মজুরি ঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে না। আর তাতে দিন মজুর শ্রমিকরাই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অভিযোগ করা হয়, শ্রমিকের যোগ্যতা অনুযায়ী বেতন দিচ্ছেন না মালিকরা। কোনো কোনো কারখানায় তৃতীয় গ্রেডের শ্রমিককে তার ৪র্থ কিংবা ৫ম গ্রেডে বেতন দিচ্ছে বলে জানানো হয়। মালিকরা অতিরিক্ত শ্রমিক দরকার নেই অজুহাত তুলে কর্মী ছাঁটাই করছে।

শ্রমিকদের অভিযোগ মালিক পক্ষ এখন ৭ ঘণ্টার কাজ ৫ ঘণ্টায় করিয়ে নিচ্ছে।

তারা দাবি করেন, ২৫ থেকে ৩০ শতাংশ কারখানা নতুন মজুরি দিয়েছে। আর ৭৬ শতাংশ মজুরি বৃদ্ধি দেখিয়ে কারখানা মালিকরা সরকারের কাছ থেকে নানা সুবিধা আদায় করছে বলে অভিযোগ করে সংগঠনটি।

আর এর মধ্যে খেলাপী ঋণ পুনঃতফসিল আইনী বাধ্যবাধকতায় বড় ধরণের ছাড় ও ১ শতাংশ হারে সুদে রপ্তানি উন্নয়ন সহায়তায় অর্থ নিচ্ছে বলে জানানো হয়।

নুষ্ঠানে সংগঠনটির সভাপতি, অ্যাড.মাহবুবুর রহমান ইসমাইল বলেন, তাজরিন ফ্যাশনের মালিককে গেপ্তার করেনি পুলিশ। আদালতে আত্মসমর্পনের আগে তিনি বিগত দুই মাস ধরে নিয়মিত অফিস করেছেন। তবে সরকার তাকে গ্রেপ্তারের কোনো চেষ্টা করেনি বলে অভিযোগ করেন তিনি। তিনি শ্রমিক হত্যার দায়ে তার ফাঁসির দাবি করেন ।

পোশাক শিল্পে এক-তৃতীয়াংশ শ্রমিক পিস রেইটে কাজ করে আসছে। তবে এই সিংহভাগ শ্রমিকের মজুরি বৃদ্ধিতে নিম্নতম মজুরি বোর্ড কিংবা সরকারও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি বলে অভিযোগ করা হয়। আর এই কারণে পিস রেইটে কাজ করা শ্রমিকরা নতুন বর্ধিত মজুরি থেকে বাদ পড়লো।

অভিযোগ করা হয়, সংশোধিত শ্রম আইনের ১০৮ ধারা অনুযায়ী পিস রেইটে কাজ করা শ্র্রমিক ৮ ঘণ্টার পরও অতিরিক্ত কাজের কোনো ওভার টাইম পাবে না। আর এখানেই প্রায় ১০ লাখ শ্রমিকই অতিরিক্ত মজুরি থেকে বঞ্চিত হয়েছে। তাই শ্রম আইনের ১০৮ ধারা বাতিল করে পিস রেইটে কর্মরত শ্রমিকদের মজুরি নির্ধারণের দাবি জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে সংগঠনটির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।