জিএসপি ফিরে পাওয়ার আশ্বাস মিললো আবারও

0
88

mozinaযুক্তরাষ্ট্রের বাজারে অগ্রাধিকারমূলক বাণিজ্যিক সুবিধা (জিএসপি)ফিরে পাওয়ার অধিকাংশই শর্তই ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করেছে বলে মনে করছেন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনা।তিনি আশা প্রকাশ করেন যে দুই একটি শর্ত এখনও বাস্তবায়িত হয়নি তা শিগগিরই বাস্তবায়ন করতে পারবে বাংলাদেশ।

মঙ্গলবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটিতে ‘প্রাইস-ট্যাগই সব নয়’ শীর্ষক এক তথ্যচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে জিএসপি ইস্যুতে তিনি এমন কথা বলেন।

বাংলাদেশের শ্রম আইন সংশোধন, পোশাক কর্মীদের মজুরি বৃদ্ধিসহ ট্রেড ইউনিয়ন গঠনে ইতিবাচক ভূমিকা রেখেছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।তার মতে জিএসপি সুবিধা ফিরে পেতে বাংলাদেশের পদক্ষেপ প্রশংসিত।

এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি মজীনা প্রায় একই অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, ‘ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ বেশ কিছু শর্ত পূরণ করেছে। বাকি শর্তগুলো পূরণেও অগ্রগতি আছে। তাই আশা করছি খুব শিগগির জিএসপি ফিরে পাবে বাংলাদেশ।’

তিনি আরও বলেছিলেন, ‘ আমি চাই বাংলাদেশ জিএসপি ফিরে পাক। আগামি মে মাসে জিএসপি পর্যালোচনা হবে। সেখানে বাংলাদেশ তার অবস্থান তুলে ধরে জিএসপি ফিরে পাবে, এটাই আমার আশাবাদ।’

এদিকে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু বাড়ি ভাড়া যেন ঘন ঘন বৃদ্ধি না করা হয় তার জন্য প্রস্তাবনা তৈরির কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, পোশাক কর্মীদের মজুরি বৃদ্ধি হলেও তা বাড়ি ভাড়া বৃদ্ধির কারণে শ্রমিকদের কাজে আসে না।

মন্ত্রী জিএসপি ফিরে পাওয়ার শর্তের মধ্যে পরিদর্শনের বিষয়টি তুলে ধরেন। আর এই কারণে মার্চের মধ্যে আরও ২০০ জন পরিদর্শক নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, আমেরিকার বাজারে অগ্রাধিকার মূলক বাণিজ্যিক সুবিধা (জিএসপি)’র ১৬ শর্তের মধ্যে ১৩টি পূরণ হয়েছে বলে গতকাল সোমবার সচিবলায়ে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমন ঘোষণা দেন।

তাছাড়া বাকী শর্ত চলতি বছরের মে মাসের মধ্যে সম্পন্ন করে যুক্তরাট্রের কাছে রিপোর্ট জমা দেওয়া হবে বলে জানান তিনি। তার এমন ঘোষণার পর আজ দেশটির রাষ্ট্রদূতের কাছ থেকে এই আশ্বাসের কথা মিললো।