প্রেসক্লাবে গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সমাবেশ ও মিছিল অনুষ্ঠিত

0
101
bam morca

bam morcaজাতীয় প্রেসক্লাবে মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার এক সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধ, অবৈধ সংসদ বাতিল করে গণতান্ত্রিক নির্বাচনের দাবিতে, সাম্রাজ্যবাদের দালাল দুর্নীতিবাজ শাসকগোষ্ঠী এবং সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিপরীতে শ্রমিক-কৃষক-মধ্যবিত্ত জনগণের গণতান্ত্রিক সরকার-সংবিধান-রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানানো হয়।

গণতান্ত্রিক বাম মোর্চার সমন্বয়ক ও ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য অধ্যাপক আবদুস সাত্তারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ-সম্পাদক সাইফুল হক, গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়কারী এড. আব্দুস সালাম, বাসদ কেন্দ্রীয় কনভেনশন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য মানস নন্দী, গণতান্ত্রিক বিপ্লবী পার্টির সাধারণ-সম্পাদক মোশরেফা মিশু, বাংলাদেশের ইউনাইটেড কমিউনিস্ট লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য নজরুল ইসলাম, বাসদ কেন্দ্রীয় সদস্য মাহিনউদ্দিন চৌধুরী লিটন, সমাজতান্ত্রিক আন্দোলনের আহ্বায়ক হামিদুল হক প্রমুখ।

সমাবেশে নেতারা বলেন, ৫ জানুয়ারি ১৪ ভোটারবিহীন নীলনক্শার প্রহসনের নির্বাচন করে প্রশ্নবিদ্ধ দশম জাতীয় সংসদ ও সরকার গঠন করে শেখ হাসিনা দেশ শাসন করছে। এ সংসদ ও সরকারের কোনো নৈতিক ভিত্তি এবং দেশে-বিদেশে কোনো গ্রহনযোগ্যতা নেই। জনগণের অনাস্থা ও সমর্থন না পেয়ে সরকার ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে সরকার গঠন করেই পক্ষান্তরে চরম দমন-নিপীড়নের পথ বেছে নিয়েছে।

বিচার বহির্ভূত হত্যাকাণ্ডে গত নির্বাচনের পর থেকে ৩০-৩২ জন মানুষকে হত্যা করা হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চ্যাম্পিয়ান দাবিদার আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন তথাকথিত সর্বদলীয় সরকারের এ ধরনের ফ্যাসিবাদী আচরণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ও আকাঙ্খার সম্পূর্ণ পরিপন্থী।

নেতারা আরও বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশন গত মহাজোট সরকারের দুর্নীতিবাজ মন্ত্রী ও সাংসদদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার তৎপরতার ঘোষণা দিলেও সরকারের শীর্ষপর্যায় থেকে এ ব্যাপারে তেমন কোনো ভূমিকা লক্ষ্য করা যায়নি। অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি বিশেষ করে গার্মেন্টস শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি, রানা প্লাজাসহ সকল কারখানায় দুর্ঘটনায় নিহত-আহত, নিখোঁজ শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণ ও পূনর্বাসনের জন্য গার্মেন্টস মালিক ও সরকারের ভূমিকার কঠোর সমালোচনা করে নেতারা অনতিবিলম্বে শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি, শ্রমিক-কর্মচারীদের এক কর্মজীবনের সমপরিমাণ ক্ষতিপূরণ দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান।

তারা বলেন, দেশের কৃষকরা উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত। বর্তমানে দেশের আলুচাষীরা আলুর ন্যায্য দাম না পেয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। নেতারা সরকারকে আবশ্যই আলুসহ কৃষি পণ্যের ন্যায্যমূল্য প্রদানের ব্যবস্থা করার আহ্বান জানান।

নেতারা অবিলম্বে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়সহ সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে বাণিজ্যিক সান্ধ্যকোর্স বাতিল এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত সকল ছাত্র ও ছাত্র নেতাদের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানান।

কেএফ