শেয়ারবাজারে দুই সাবেক মন্ত্রীর বিনিয়োগ তথ্য চেয়েছে দুদক

0
46

Ruhul_Mahbuburক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ সরকারের সাবেক এক মন্ত্রী ও একজন প্রতিমন্ত্রীর শেয়ারবাজারে কোনো বিনিয়োগ আছে কি-না তা জানতে চেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এরা হচ্ছেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুহুল হক ও পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান।

এ বিষয়ে তথ্য সরবরাহের জন্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনকে (বিএসইসি) চিঠি দিয়েছে সংস্থাটি। সম্প্রতি দুটি আলাদা চিঠিতে তাদের বিনিয়োগের তথ্য জানতে চেয়েছে তারা। চিঠিতে তাদের পরিবারের সদস্যদের নামে কোনো বিনিয়োগ থেকে থাকলে তাও জানাতে বলা হয়েছে। দুদক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

দুদকের অনুরোধে বিএসইসি রুহুল হক, মাহবুবুর রহমান ও তাদের পরিবারের সদস্যদের বিনিয়োগ সংক্রান্ত তথ্য চেয়ে সব ব্রোকারহাউজ ও মার্চেন্ট ব্যাংকের কাছে চিঠি দিয়েছে।

চিঠিতে আ ফ ম রুহুল হক, তার স্ত্রী ইলা হক, ছেল জিয়াউল হক এবং মাহববুর রহমান, স্ত্রী প্রীতি হায়দার, মেয়ে ফারিহা মাহবুব  ও আনিকা রাইসা মাহবুবের বিনিয়োগ সংক্রান্ত সব ধরনের তথ্য চাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ,গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত সংসদ নির্বাচনের আগে নির্বাচন কমিশনের হলফনামায় প্রার্থীরা তাদের সম্পদের বিবরণ দিয়েছেন। এতে সাবেক কয়েকজন মন্ত্রীর অস্বাভাবিক সম্পদ বৃদ্ধির বিষয়টি সারাদেশে তুমুল সমালোচনার জন্ম দেয়। হলফনামায় দেওয়া তথ্য অনুসারে, আ ফ ম রুহুল হক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালনকালে পাঁচ বছরে তার স্ত্রীর সম্পদ বেড়েছে ৭৮২ শতাংশ।বড় ব্যবসায়ী হয়েছেন তার একমাত্র ছেলে জিয়াউল হক।চাকরি ছেড়ে তিনি আন্তর্জাতিক টেলিফোন কল,ওষুধের ব্যবসা করছেন।

সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান ক্ষমতার পাঁচ বছরে ২০ একর জমি থেকে দুই হাজার ৮৬৫ একর জমির মালিক হন। পাঁচ বছরে তার ব্যাংকে টাকা বেড়েছে ৫৮৬ গুণ, জমি বেড়েছে ১৪৩ গুণ, বছরে আয় বেড়েছে ৭৯ গুণ।

২০০৮ ও ২০১৩ সালের হলফনামা বিশ্লেষন করে দেখা গেছে, সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী ডা: আ ফ ম রুহুল হকের স্ত্রী ইলা হকের সম্পদ ২০০৮ সাল থেকে এবার ৭৮২ শতাংশ বেড়েছে। সাবেক এই মন্ত্রীর অস্থাবর সম্পদের পরিমান ১১০ শতাংশ বেড়েছে। ২০০৮ সালে সম্পদের মূল্য ছিল ৩ কোটি ৬৯ লাখ ২০ হাজার ৬৮৪ টাকা। ২০১৩ সালে তা বেড়ে ৭ কোটি ৭৭ লাখ ৭২ হাজার ৩৮৫ টাকা হয়েছে। এ তথ্য ডা: রুহুল হক নিজেই তার হলফনামায় উল্লেখ করেছেন। দুদকের দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, যে কয়জন সাবেক মন্ত্রী ও এমপির সম্পদের খোঁজে দুদক মাঠে নেমেছে তার মধ্যে সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী ডা: আ ফ ম রুহুল হক রয়েছেন।