শিশু মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ক্লিনিক ভাংচুরের চেষ্টা

0
32
madical

madicalমাদারীপুরের নুরজাহান সেলিম নিরাময় প্রাইভেট হাসপাতাল নামের একটি ক্লিনিকে এক শিশুর মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ঐ রোগির লোকজন উত্তেজিত হয়ে হাসপাতাল ভাঙচুর করতে গেলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনায় রোগির আত্মীয় স্বজদের সাথে সালিশে বসলে একটি অটোরিক্সা কিনে দেওয়ার সিদ্ধান্তে মিমাংসা হয়েছে বলে স্থানীয় ও পারিবারিকভাবে জানা গেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী, সূত্রে জানা গেছে, রবিবার সকাল ১১টার দিকে মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার খাসেরহাট এলাকার সুমন মন্ডলের দেড় বছর বয়সের মেয়ে সেতুকে ঠান্ডাজনিত কারণে মাদারীপুর শহরের নুরজাহান সেলিম নিরাময় প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি করে। ক্লিনিকের কর্তব্যরত চিকিৎসক পি.কে বৈদ্য বিপ্লব সেতুকে একটি ইনজেকশন দেওয়ার জন্য ব্যবস্থাপত্র লিখে। পরে ঐ ক্লিনিকের নার্স সুমা ইনজেকশন পুশ করার পর শিশুটি মারা যায়।

রবিবার সন্ধ্যায় রোগির আত্মীয় স্বজনরা ভুল চিকিৎসায় শিশুটির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ এনে হাসপাতালে ভাঙচুর করতে আসলে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এই ঘটনায় রাত সাড়ে ৮টার দিকে রোগীর আত্মীয় স্বজন ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ নিরাময় হাসপাতালে সালিশ মিমাংশায় বসে। সালিশ মিমাংসায় সিদ্ধান্ত হয় মৃত্যু সেতুর বাবা অটোচালক সুমন মন্ডলকে একটি অটোরিক্সা কিনে দিবে।

এব্যাপারে মৃত সেতুর মামা দিপু বলেন, আমার ভাগনিকে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসলে একটি ইনজেকশন পুশ করার পরে ও মারা যায়। আমারা গরীব মানুষ। এলাকার গণ্যমান্যরা সালিশে মিমাংসা করে দিয়েছে। সালিশে সিদ্ধান্ত হয়েছে একটি অটোরিক্সা কিনে দিবে। তাই আমরা মেনে নিয়েছি।

মাদারীপুর মডেল থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মোফাজ্জল হোসেন জানান, একটি ঝামেলার কারণে পুলিশ হাসপাতালে গিয়েছিল। হাসপাতালে কি হয়েছে জানিনা।

পরে প্রতিবেদক রোগির মৃত্যুর কথা জানালে ওসি বলেন, রোগির স্বজনরা যদি অভিযোগ দেয় তাহলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নেব।

এ ব্যপারে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. পি.কে বৈদ্য বিপ্লব কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

নুরজাহান সেলিম নিরাময় প্রাইভেট হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. গোলাম সরোয়ার সালিশের কথা অস্বীকার করে বলেন, আমরা সালিশ করিনি। একটি রোগি মারা গেছে। এই ঘটনার জন্য রোগির আত্মীয় স্বজনদের সাথে কথা বলার জন্য বসেছিলাম। এ সময় তিনি অটোরিক্সা কিনে দেওয়ার কথাও অস্বীকার করেন।

সাকি/