গোল্ডেনসনের কাছে বাড়তি শুল্ক দাবির উপর আদালতের নিষেধাজ্ঞা

0
39
Goldenson
গোল্ডেন সন লিমিটেডের পণ্য

Goldensonআমদানি শুল্ক নিয়ে সৃষ্ট বিরোধে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছে প্রকৌশল খাতের কোম্পানি গোল্ডেনসন লিমিটেড। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) অধীন চট্টগ্রাম বন্ড কমিশনারেট কোম্পানিটির কাছে বাড়তি ২ কোটি টাকার শুল্ক দাবি করেছিল। আদালত এ দাবির উপর ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে। কোম্পানি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, শতভাগ রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠান গোল্ডেনসনের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম বন্ড কমিশনারেট আমদানি শুল্ক ফাঁকির অভিযোগ আনে।অভিযোগে বলা হয়, কোম্পানিটি শুল্কমুক্ত সুবিধায় কাঁচামাল আমদানি করলেও বন্ডের শর্ত অনুযায়ী পণ্য রফতানি করেনি। কাঁচামালের একটি অংশ স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে দিয়েছে। আর এর মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি ২ কোটি টাকার রাজস্ব ফাঁকি দিয়েছে।

কোম্পানির দাবি, তারা সম্পূর্ণ নিয়ম ও আইন অনুসারেই আমদানিকৃত কাঁচামাল দিয়ে পণ্য উৎপাদনের পর তা রপ্তানি করা হয়েছে।আর ওই পণ্য বিদেশে রপ্তানি করে শতভাগ মূল্য দেশে প্রত্যাবাসন করা হয়েছে।কোনো কাঁচামাল স্থানীয় বাজারে বিক্রির প্রশ্নই উঠে না। মূলত কাঁচামাল ব্যবহারের হিসাব নির্ধারণে পদ্ধতিগত ভিন্নতার কারণে বন্ড কমিশনারেট হিসাবে গড়মিল আছে বলে দাবি করেছে।এমন অবস্থায় কোম্পানি ন্যায় বিচারের জন্য উচ্চ আদালতের শরনাপন্ন হলে বিচারপতি আশরাফুল ইসলাম ও বিচারপতি আশরাফুল কামালের দ্বৈত বেঞ্চ গত ২৮ জানুয়ারি  ছয় মাসের স্থগিতাদেশ দেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করলে গোল্ডেনসনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বেলাল আহমেদ বলেন, ভুল বোঝাবুঝি থেকে এমনটি হয়েছে। গোল্ডেনসন কোনো শুল্ক ফাঁকি দেয়নি। প্রচলিত সব আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে স্বচ্ছতার সঙ্গে ব্যবসা করছে গোল্ডেনসন। আমদানিকৃত কাঁচামালে উৎপাদিত পণ্য রপ্তানির পর শতভাগ রপ্তানি মূল্য ব্যাংকিঙ চ্যানেলের মাধ্যমে দেশে প্রত্যাবাসন করা হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্ড কমিশনারেটের দাবির উপর আদালত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছেন। আমরা কমিশনারেটের কাছে  আমাদের অবস্থানের স্বপক্ষে প্রয়োজনীয় সব দলিলাদি জমা দিচ্ছি। আশা করছি তাদের ভুল ভাঙ্গাতে সক্ষম হব আমরা।