৮ কোটি টাকা আত্মসাতে ২০ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

0
46
ACC
অর্থ আত্মসাতে দুদকের মামলা

দুর্নীতি দমন কমিশনভুয়া প্রতিষ্ঠানের নামে সঞ্চয়পত্র জাল করে আরব বাংলাদেশ (এবি) ব্যাংক  থেকে  ৮ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ব্যাংকটির সিনিয়র অফিসারসহ জালিয়াত চক্রের ২০ জনের বিরুদ্ধে মামলার চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ মামলার চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দেওয়া হয়।

দুদক সূত্র জানায়, একটি জালিয়াত চক্র নিজেদের নাম ও ঠিকানা পরিবর্তন করে খুলনা অক্সিজেন নামে একটি ভুয়া প্রতিষ্ঠান খোলে। চক্রটি প্রতিষ্ঠানের নামে এবি ব্যাংক ধানমন্ডি শাখা থেকে ২০০৪ সাল থেকে ২০০৭ সালের বিভিন্ন সময়ে ৮ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করে। ঋণ গ্রহণের সময় তারা ভুয়া সঞ্চয়পত্র তৈরি করে ব্যাংকটির এক কর্মকর্তার সাহায্যে এসব টাকা উত্তোলন করে। আর উত্তোলনের পর ব্যাংকের এসব টাকা পরিশোধ না করে পরস্পর যোগসাজসে আত্মসাৎ করে।

মোহাম্মদপুর থানার মামলার তদন্ত শেষে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিলের অনুমোদন দেওয়া হয় তারা হলেন এবি ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার এমএম মাকছুদ মজুমদার। আর জালিয়াত চক্রের সদস্যরা হলেন-আতিকুর রহমান, তৌহিদ মাহমুদ, নজরুল ইসলাম, আব্দুল খালেক ওরফে ওমর চন্দ্র দাস, আব্দুল কাইউম মোল্লা, মো. জামাল উদ্দিন হাওলাদার, মো. দুলাল হাওলাদার, জাকির শেখ, কাজী জসিমুল ইসলাম, কাজী জহিরুল ইসলাম, জাকির হোসেন, মো. শাহ আলম, তানভীর মাশফু, এইচ এম বারিক, আমিনুল ইসলাম, আইনুল হক, আসাদুজ্জামান মিঠু, মো. নুরুজ্জামান ফকির, মিসেস মুরশিদা আফরিন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও দুদকের উপ-পরিচালক মো. খায়রুল হুদা জানান, জালিয়াত চক্রটি দীর্ঘদিন যাবৎ ভুয়া প্রতিষ্ঠান খুলে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে এ বিপুল পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করে আসছিল। আর ব্যাংক কর্মকর্তা যাচাই-বাছাই না করে যোগসাজসে তাদের ধারাবাহিকভাবে ঋণ দিতে থাকে। তদন্ত শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় দন্ডবিধির ৪০৯/১০৯ এবং ১৯৪৭ সনের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইন ৫(২) ধারায় চার্জশিট দাখিলের অনুমতি দিয়েছে কমিশন।

খুব শিগগিরই চার্জশিট দাখিল করা হবে বলেও জানান তিনি।