ময়নাতদন্তের পর ইউসুফের লাশ হস্তান্তরের নির্দেশ ট্রাইব্যুনালের

0
92
একেএম ইউসুফ

একেএম ইউসুফমানবতা বিরোধী অপরাধ মামলায় অভিযুক্ত জামায়াত নেতা একেএম ইউসুফের লাশ ময়নাতন্তের পর হস্তান্তর করার নির্দেশ দিয়েছে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ হস্তান্তরের অনুমতি চেয়ে আসামী পক্ষের করা এক আবেদনের প্রেক্ষিতে এ আদেশ দেওয়া হয়।

রোববার বিকেলে আসামি পক্ষের আবেদনের শুনানি শেষে ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মুজিবুর রহমান মিয়া ও শাহীনুর ইসলাম এ আদেশ দেয়।

আসামি পক্ষে আবেদনের শুনানী করেন গাজী এইচ এম তামিম। প্রসিকিউশনের পক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর হায়দার আলী।

শুনানি শেষে বিচারক বলেন,  একেএম ইউসুফ গ্রেপ্তার হওয়ার পর কারা কর্তৃপক্ষের হেফাজতে ছিলেন। কাস্টডিতে থাকা অবস্থায় কী কারণে তার মৃত্যু হলো তা ট্রাইব্যুনালেরও জানা প্রয়োজন।

এর আগে, রোববার সকালে গাজিপুর কাশিমপুর কারাগারে অসুস্থ্য হয়ে পড়েন ইউসুফ। অসুস্থ্য অবস্থায় তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল হাসাপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকরা জানায়, হৃদরোগ ও বার্ধক্যজনিত কারণে ইউসুফের মৃত্যু হয়েছে।

গত বছরের ১ আগস্ট  মু্ক্তিযুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় একেএম ইউসুফের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।

তার বিরুদ্ধে ১৩ টি অভিযোগ আনা হয়। এর মধ্যে ছিল ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ৭০০ জনকে গণহত্যা, ৮ জনকে হত্যা, ২০০ হিন্দু লোককে জোর করে ধর্মান্তরিত করাসহ ৩০০ বাড়ি, ৪০০ দোকান লুট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা।

উল্লেখ্য, গত ১২ মে এই জামায়াত নেতার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল-১। ট্রাইব্যুনালের আদেশের প্রায় এক ঘণ্টার মধ্যেই ধানমন্ডির বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। পরে গত ১ জুলাই জামায়াত নেতা ইউসুফের মামলাটি ট্রাইব্যুনাল-১ থেকে ট্রাইব্যুনাল-২ স্থানান্তর করা হয়।