মামলা প্রমাণিত হলে রাজনীতি ছেড়ে দেব: রফিকুল ইসলাম

0
91
Rafikul Islam

রফিকুল ইসলাম মিয়ামামলা প্রমানিত হলে রাজনীতি ছেড়ে দেওয়ার কথা জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া।

শনিবার বেলা পৌণে একটায় রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে ‘বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কর্মজীবি পরিষদ (কেন্দ্রীয় কমিটি)’ আয়োজিত ‘বিনা বিচারে হত্যাকাণ্ড, মৌলিক অধিকার ও জাতীয় সংসদ’শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ব্যরিষ্টার রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে ৫টি মামলা রয়েছে তার একটিও যদি প্রমাণিত হয় তাহলে আমি রাজনীতিই ছেড়ে দেব।

তিনি বলেন, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর বাড়িতে বোমা হামলার  দায়ে আমাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। যেদিন আমাকে গ্রেপ্তার করা হয় সেই দিনও আমি ইনুর সঙ্গে প্রথম আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ছিলাম। তিনি আমার খোঁজ খবরও নিয়েছেন। গ্রেপ্তারের পর জানলাম তার বাড়িতে বোমা হামলা মামলায় আমাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। এ কারণে আমি সাড়ে তিনমাস বন্দী ছিলাম।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদকে পুরানো বেইমান উপাধি দিয়ে তিনি বলেন, এরশাদ আমাকে বলেছিলেন, বৃদ্ধ বয়সে তিনি জাতীয় বেইমান হতে পারবেন না। কিন্তু তিনি তো পুরনো বেইমান। তিনি সিএমএইচে ভর্তি হয়ে চিকিৎসার নামে গলফ খেলে যে নাটক করেছেন তার কোনো মানেই ছিল না।

এসময় তিনি রওশন এরশাদ প্রসঙ্গে বলেন, রওশন এরশাদ গৃহপালিত বিরোধী দলীয় নেতা হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সাবেক মন্ত্রী গৌতম চক্রবর্তী বলেন, ‘যে সব বুদ্ধিজীবীরা এখন মুখ বন্ধ করে আছেন তাদের চিহ্নিত করে রাখতে হবে। সময় সুযোগ আসলে তাদেরও বিচার করা হবে।’

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি হাজী মো. লিটনের সভাপতিত্বে ও বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কর্মজীবি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. আলতাফ হোসেন সরদারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, স্বাধীনতা ফোরামের সভাপতি আবু নাসের মো. রাহমাতুল্লাহ, কর্মজীবি পরিষদ নেতা প্রিন্স মাহমুদ, রাবেয়া চৌধুরী প্রমুখ।

এমআর