মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড়

0
40
Trade

Tradeদীর্ঘ এক মাসব্যাপী শুরু হওয়া বাণিজ্য মেলা প্রায় শেষের দিকে। তার ওপর আবার শুক্রবার ছুটির দিন।  তাই আজ ক্রেতা-দর্শনার্থীর উপচে পড়া ভিড় ছিল মেলায়। কানায় কানায় ভরে গিয়েছিল মেলা প্রাঙ্গণ। আর এতে আয়োজক, প্যাভিলিয়ন ও স্টল মালিকরাও দারুণ খুশি। কোনো কোনো স্টলে ক্রেতাদের সামলাতে হিমশিম খেতে হয়েছে বিক্রয় কর্মীদের।

তবে সবচেয়ে বেশি ক্রেতা দেখা গেছে, প্লাস্টিকপণ্য, ক্রোকারিজ, গহণা, খাদ্যপণ্য, কাপড়, প্রসাধনী ও শিশুদের খেলনা সামগ্রীর দোকানগুলোতে।

শুক্রবার দুপুরের পর থেকে আগারগাঁওয়ের আইডিবি ভবনও বিজয় সরণী থেকে মেলার প্রধান প্রবেশপথ এবং কলেজ গেইট থেকে মেলা পর্যন্ত ছিল দর্শনার্থীদের দীর্ঘলাইন।

এদিকে, অতিরিক্ত মানুষের পদচারণায় এই সড়কগুলো সারাদিন ছিল ধুলাবালির রাজ্য। অসংখ্য মানুষকে মুখে মাস্ক পরে মেলায় আসতে দেখা গেছে।

গণপরিবহনে যাওয়া মানুষ মেলা প্রাঙ্গণের কাছাকাছি নেমে হেঁটে যেতে পারলেও বেশি ভোগান্তি হয়েছে নিজস্ব বাহনে করে আসা দর্শনার্থীদের।

রাজধানীর রামপুরা থেকে মেলায় আসা সরকারি চাকুরীজীবী বুলবুল আহমেদ অর্থসূচককে বলেন,  কয়েকবার চেষ্টা করেছি মেলায় আসার জন্য কিন্তু নানা প্রতিকূলতার জন্য আসা হয়নি। আজ ছেলেমেয়ে নিয়ে মেলায় এসে অনেকটা বিপদেই পড়ে গেলাম। ভিড় সামলে স্টলগুলোতে ঢুকতে বেশ কষ্ট হল। বিক্রয়কর্মীরা ঠিকভাবে কথা বলতে পারছে না।

পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় আসেন কাকরাইলের ব্যাবসায়ী মাহবুব আলম। তিনি বলেন, অনেক কষ্ট করে দূর থেকে মেলায় এসেছি। কিন্তু দেখলাম মেলায় আসা প্রায় সব পণ্যই নিউমার্কেট, গুলিস্তান ও বসুন্ধরা সিটিতে পাওয়া যায়। ছাড় দিলেও মূলত ওইসব জায়গার তুলনায় মেলায় দাম একটু বেশি। তাছাড়া আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় হকারদের অবাধে প্রবেশ ও ধাক্কাধাক্কি নিয়েও প্রশ্ন তুলেন এই দর্শনার্থী।

মেলা ঘুরে দেখা যায়, লোক সমাগম বেশি হওয়ায় ক্রেতা-দর্শনার্থীদের বেশ ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। তবে খুশি বিপণন কর্মকর্তা ও বিক্রয় প্রতিনিধিরা।

কয়েকজন বিক্রয়কর্মীর সঙ্গে কথা বলে জানা গেল,  শেষ সময়ে মেলায় প্রকৃত ক্রেতার সংখ্যা বেড়েছে। যাঁরা মেলায় আসছেন সবাই কিছুনা কিছু পণ্য কিনছেন।

এছাড়া, শেষদিকে এসে অনেক প্রতিষ্ঠান পণ্যের ওপর বেশি মূল্য ছাড়ও উপহার দিচ্ছে। এই জন্যে শেষের দিকে আগের চেয়ে বিক্রি বেড়েছে।

মেলার শেষ সাপ্তাহিক ছুটির দিন হওয়ায় আজ (শুক্রবার) মেলায় অনেক ভিড় হয়েছে বলে জানান বিক্রেতারা।

অনেক দর্শনার্থী মেলার টয়লেট নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাদের অভিযোগ মেলা কতৃপক্ষ ১০টি স্থানে টয়লেটের ব্যবস্থা করেছে। কিন্তু সবগুলোই ছিপা-চাপায়। খুঁজে বের করতে অনেক সময় লাগে। অনেকে বহু খোঁজাখুঁজির পরও টয়লেটের দেখা পায়নি বলে জানিয়েছেন।

এদিকে, মেলার সময়সীমা বাড়ানোর গুঞ্জন শুনা গেলেও শেষ পর্যন্ত তা হচ্ছে না। মেলাকর্তৃ পক্ষ সূত্রে জানা গেছে, এবার মেলার সময়সীমা বাড়ছে না। যদিও গত রোববার প্যাভিলিয়ন ও স্টল মালিকেরা ইপিবির কাছে সময়সীমা বাড়ানোর জন্য লিখিত আবেদন করেছে। কিন্ত কর্তৃপক্ষ বলে দিয়েছে মেলার সময় বাড়ানো হবে না। ১০ ফেব্রয়ারি নির্ধারিত দিনেই শেষ হচ্ছে ১৯তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা।

উল্লেখ্য, দশম সংসদ নির্বাচন আর রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে ১০দিন পিছিয়ে ১৯তম আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা শুরু হয়েছিল গত ১১ জানুয়ারি। মেলার সময় একমাস হওয়ায় তা ১০ ফেব্রয়ারি শেষ হবে।

জেইউ