ঊর্ধ্বমুখী বাজারে বাড়ছে পিই রেশিও

0
67
dse
ডিএসই লোগো

dseউর্ধমুখী বাজারে শেয়ারের মূল্য-আয় অনুপাত বা পিই রেশিও ধারাবাহিকভাবে বাড়ছে। সপ্তাহ শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সাধারণ পিই রেশিও বেড়েছে ১ দশিমক ৮৭ শতাংশ।

ডিএসইর তথ্যমতে, আগের সপ্তাহে ডিএসইর পিই রেশিও ছিলো ১৬ দশিমক ৭৪ পয়েন্ট। আর সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে তা  ১৭ দশমিক ০৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

বিনিয়োগকারীদের মতে, বাজার ইতিবাচক হলেও বাড়ছে সব ধরনের কোম্পানির পিই রেশিও। তাই বাজারের এই পিই রেশিও কে স্বাভাবিক বলতে নারাজ তারা।

সপ্তাহ শেষে ট্রেইলিং পিই রেশিও ১৯ দশমিক ৫৪ থেকে বেড়ে ১৯ দশমিক ৭৫ হয়েছে। আর বার্ষিকীকৃত পিই রেশিও বেড়ে হয়েছে ২০ দশিমক ৮৫, যা আগের সপ্তাহে ছিল ১৯ দশমিক ৫৫।

বিশ্লেষকদের মতে, গত সপ্তাহে বেশিরভাগ কার্যদিবসেই বাজার ঊর্ধ্বমুখী থাকায় পিই রেশিও বেড়েছে। রাজনৈতিক অস্থিরতাসহ নানা কারণে গত প্রান্তিকে বেশিরভাগ কোম্পানির মুনাফা ও ইপিএস কমে যাওয়ার কারণেও ট্রেইলিং পিই রেশিও বাড়ছে।

খাতভিত্তিক পিই রেশিও বিশ্লেষণে দেখা যায়,ব্যাংক খাতের পিই রেশিও অবস্থান করছে ১৭ দশমিক ৯০ পয়েন্টে,সিমেন্ট খাতের ২০ দশমিক ৫০ পয়েন্ট, সিরামিক খাতের ৪২ দশমিক ৪০ পয়েন্ট, প্রকৌশল খাতের ২৩ দশমিক ৩০ পয়েন্ট,খাদ্য ও আনুসাঙ্গিক খাতের ৩৬ দশমিক ২০ পয়েন্ট, জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাতের ১৩ দশমিক ৩০ পয়েন্ট, বিমা খাতের ১৯ দশমিক ২ পয়েন্ট, তথ্য ও প্রযুক্তি খাতের ২৫ দশমিক ১০ পয়েন্ট, পাট খাতের ৪ দশমিক ৮০ পয়েন্ট, বিবিধ খাতের ৫০ দশমিক ৪০ পয়েন্ট, আর্থিক খাতের ২১ দশমিক ৫০ পয়েন্ট, কাগজ খাতের ৮৯ দশমিক ৬০ পয়েন্ট, ওষুধ ও রসায়ন খাতের ২৩ দশমিক ৪০ পয়েন্ট,সেবা ও আবাসন খাতের ২৮ দশমিক ৭০ পয়েন্ট,চামড়া খাতের ১৮ দশমিক ১০ পয়েন্ট, যোগাযোগ খাতের ১৯ দশমিক ৪০ পয়েন্ট, বস্ত্র খাতের ১৬ দশমিক ১০ পয়েন্ট এবং ভ্রমণ ও অবকাশ খাতে ২৯ দশমিক ৪০ পয়েন্টে অবস্থান করছে।