অর্থ পাচার মামলায় ব্যারিস্টার আমিনুল হকের বিরুদ্ধে চার্জশিট

0
35

আমিনুল হকক্ষমতার অপব্যবহার করে ঘুষ গ্রহণের মাধ্যমে প্রায় ১৪ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগের মামলায় বিএনপি নেতা ও সাবেক ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী ব্যারিস্টার আমিনুল হকের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। একই সাথে তার  বেয়াই আমেরিকান প্রবাসী মিজানুর রহমানকেও আসামি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ চার্জশিট অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন দুদকের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র।

দুদক সূত্র জানায়,  ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত সময়ে জোট সরকারের ডাক, তার ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী থাকার সুবাধে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে বিটিটিবি’র টেলিটক মোবাইল এবং মোবাইল নেটওয়ার্কি এর সিমেন্সকে আন্তর্জাতিক দরপত্রে ৪০ মিলিয়ন ডলারের কাজ পাইয়ে দেন ব্যারিস্টার আমিনুল হক। আর এ কাজ পাইয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে আমেরিকায় থাকা  তার বেয়াই মো. মিজানুর রহমানের মাধ্যমে ১৩ কোটি ৬৬ লাখ ৫১ হাজার ৬০০ টাকা (১৭ লাখ আট হাজার ১৪৫ মার্কিন ডলার) ঘুষ গ্রহণ করেন। গ্রহণকৃত এ ঘুষের টাকা তিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন না মেনে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংকে জমা করেন। বিষয়টি তদন্ত শেষে প্রমাণিত হওয়ায় এ চার্জশিট অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

সূত্র আরও জানায়, আসামিরা মানিলন্ডারিং অপরাধ করায় তাদের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ১৩ ধারা তথা মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০০৯ এর ৪(২) ধারা তথা মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২ এর ৪(২) ধারায় মামলাটির চার্জশিট দাখিলের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এরআগে ২০১২ সালের ৭ জুন রাজধানীর রমনা মডেল থানায় মামলাটি (মামলা নং-২৩) দায়ের করা হয়েছিল। ওই সময় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর দুদকের উপ-পরিচালক শাহীন আরা মমতাজ বিষয়টি তদন্ত করেছেন।

এইউ নয়ন