ড. মোশাররফের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং মামলা

0
104

Mosarraf-dudok

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও চার দলীয় জোট সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে সাড়ে নয় কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে মামলা করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। কমিশনের উপ-পরিচালক নাসিম আনোয়ার বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর রমনা থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুন বাগিচায় কমিশনের নিয়মিত বৈঠকে এ মামলাটি দায়েরের অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানান দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা ও উপ পরিচালক প্রণব কুমার ভট্টাচার্য।

দুদক সূত্র জানায়, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে স্বাস্থ্য ও পরিবার মন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে ক্ষমতার অপব্যবহার করে প্রচুর অর্থ সম্পত্তির মালিক হয়েছেন। এসময় তিনি দুর্নীতি ও মানিলন্ডারিং মাধ্যমে অবৈধভাবে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা গোপন করে দেশে বিদ্যমান আইন লঙ্ঘন করে যুক্তরাজ্যের “লর্ড টিএসবি অফসোর প্রাইভেট” ব্যাংকে তার নিজের ও স্ত্রী মিসেস বিলকিস আক্তারের যৌথ নামে ৮ লাখ ৪ হাজার ১৪২ ব্রিটিশ পাউন্ড পাচার করেন। যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৯ কোটি ৫৩ লাখ ৯৫ হাজার ৩৮১ টাকা।

মামলার বিবরনীতে বলা হয়, ড. মোশাররফ হোসেনের দেওয়া সম্পদ বিবরণীর বাইরে যুক্তরাজ্যের একটি প্রাইভেট ব্যাংকে ৮ লাখ ৪ হাজার ১৪২ ব্রিটিশ পাউন্ড জমা করেন। এ সময় তিনি এ টাকা দেশ থেকে যুক্তরাজ্যে পাঠানোর সময় বৈদেশিক মুদ্রা হিসাব খোলার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন গ্রহণ করেননি। যা বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রন আইন, ১৯৪৭ এর ৫ ধারা লঙ্ঘিত হয়।

দুদক জানায়, অনুসন্ধানে মুদ্রা নিয়ন্ত্রন আইন লঙ্ঘিত হওয়ায় মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০০২ এর ধারা, ২০০৯ ও ২০১২ এর চার ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গন্য হয়েছে। ফলে দুদক তার বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং মামলা (রমনা-১৩) দায়ের করে।