জুনে জিএসপি ফিরে পেতে পারে বাংলাদেশ : তোফায়েল

0
66
tofayel

tofayelচলতি বছর জুন মাসের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে পণ্য রপ্তানির ক্ষেত্রে শুল্ক মুক্ত প্রবেশাধিকার (জিএসপি) ফিরে পেতে পারে বাংলাদেশ। তবে তার আগে আগামি ৬ এপ্রিল টিকফা চুক্তির প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ড্যান ডব্লিউ মজিনার সঙ্গে এক বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, জিএসপি ফিরে পেতে আমরা সকল ধরনের উদ্যোগ নিয়েছি। ইতোমধ্যে এজন্য যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া অনেক শর্ত মেনে নেওয়া হয়েছে। আশা করছি আগামি জুনের মধ্যে  আমরা জিএসপি সুবিধা ফিরে পাবো।

এদিকে জিএসপি ফিরে পাওয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের দেওয়া অন্যমত অলিখিত শর্ত টিকফা চুক্তি বাস্তবায়নের প্রথম বৈঠকও এর আগেই অনুষ্ঠিত হবে। মন্ত্রী জানান, আগামি ৬ এপ্রিল এ বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এর আগে গত ২৬ জানুয়ারি মন্ত্রী জানান যুক্তরাষ্ট্রের স্থগিত করা জিএসপি সুবিধা পুনরুদ্ধারের জন্য এপ্রিল মাসের মধ্যেই দেওয়া সব শর্ত পূরণ করা ।

এ ছাড়া ইউরোপের বাজার নিয়ে বাণিজ্য, পররাষ্ট্র ও শ্রম সচিব এবং পাঁচ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ১৩ ফেব্রুয়ারি হবে আরেকটি বৈঠক হবে বলেও জানান তোফায়েল।

এদিকে ড্যান ডব্লিউ মজীনা বলেন, আমি চাই বাংলাদেশ জিএসপি ফিরে পাক। আগামি মে মাসে জিএসপি পর্যালোচনা হবে। সেখানে বাংলাদেশ তার অবস্থান তুলে ধরে জিএসপি ফিরে পাবে, এটাই আমার আশাবাদ।’

তিনি বলেন, ‘ইতোমধ্যেই বাংলাদেশ বেশ কিছু শর্ত পূরণ করেছে। বাকি শর্তগুলো পূরণেও অগ্রগতি আছে। তাই আশা করছি খুব শিগগির জিএসপি ফিরে পাবে বাংলাদেশ।’

টিকফা চুক্তির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা একটা সাধারণ চুক্তি। আগামি এপ্রিলে মাসে ঢাকায় এ ব্যাপারে প্রথম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে রাজনৈতিক সংকট নিরসনে বাংলাদেশকে আবারো সংলাপের তাগিদ দিয়ে মজিনা বলেন, ৬ জানুয়ারি স্পষ্ট বিবৃতি দিয়ে আমরা আমাদের অবস্থান জানিয়েছি। আমরা বলেছি সংলাপের কথা, ফলপ্রসূ সংলাপের কথা।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের বিদমান সংকট নিরসন ও দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আগের অবস্থানেই আছে। তারা এখনও সংলাপ চায়। যুক্তরাষ্ট্র মনে করে একটি সুষ্ঠু সংলাপের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ চলমান সংকট থেকে মুক্তি পাবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে আন্তর্জাতিক স্বীকৃত শ্রম অধিকার এবং শ্রমিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হচ্ছে না অভিযোগ এনে গত বছরের ২৭ জুন জিএসপি সুবিধা বাতিল করে যুক্তরাষ্ট্র। এর পর কার্যত দেশটি টিকফাকে অলিখিত প্রধান শর্ত হিসেবে ধরে নেয়। এর প্রেক্ষিতে বিভিন্ন বাম সংগঠনের বিরোধিতার মধ্যেই গত বছরের ২৫ নভেম্বর টিকফা চুক্তিতে সই করে বাংলাদেশ। গত ১৭ জুন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট কোঅপারেশন ফোরাম এগ্রিমেন্টের’ খসড়ায় এই অনুমাদন দেওয়া হয়।