৫ হাজার কোটি টাকা পাচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক

banksমূলধন ঘাটতি কমাতে ৫ হাজার কোটি টাকা পাচ্ছে রাষ্ট্রীয় চার বাণিজ্যিক ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একটি সূত্র।

 

সূত্রটি জানিয়েছে, এই টাকা দুই পর্বে দেওয়া হবে। তবে অর্থমন্ত্রণালয় বৃহস্পতিবার দাপ্তরিক ভাবে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করবে বলে জানিয়েছে সূত্রটি।

প্রসঙ্গত, এসব ব্যাংকে মোট ৮ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা ঘাটতি রয়েছে।

সূত্র জানায়, এর আগেও সোনালী, জনতা, অগ্রণী ও রূপালী ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি মেটাতে সরকার অর্থ সরবরাহ করলেও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। এ কারণে গত নভেম্বরের মধ্যে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা জমা দিয়ে অর্থ নিতে এসব ব্যাংককে বলা হয়। যার প্রেক্ষিতে ২৮ নভেম্বর চার ব্যাংক তাদের পরিকল্পনা চূড়ান্ত করে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের মাধ্যমে অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠায়।

গত আগস্টে এ চারটি ব্যাংকসহ সরকারি ৬টি ব্যাংকের মূলধন ঘাটতির বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে একটি বৈঠক হয়। সেখানে চার বাণিজ্যিক ব্যাংকের মূলধন ঘাটতির একটি অংশ দেওয়ার সরকারি সিদ্ধান্তের কথা জানান অর্থমন্ত্রী। বৈঠকে পরিস্থিতির স্থায়ী উন্নয়নে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে স্বাক্ষরিত সমঝোতা চুক্তি (এমওইউ) অনুযায়ী ব্যাংকগুলোর কাছ থেকে নির্দিষ্ট পরিকল্পনা চাওয়া হয়। এরপর ১ অক্টোবর এসব ব্যাংকের সঙ্গে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এমওইউতে সংশোধন এনেছে। নতুন এমওইউর আলোকেই অর্থমন্ত্রণালয়ে পরিকল্পনা জমা দিয়েছে তারা।

ব্যাংকগুলোর পাঠানো পরিকল্পনায় নিয়োগ, পদোন্নতি ও বদলি বিষয়ে মানবসম্পদ উন্নয়নের একটি নীতিমালা পাঠানো হয়েছে। সেখানে কর্মকর্তার দক্ষতা অনুযায়ী উচ্চ পর্যায়ে কর্মবন্টন এবং কাজের পরিধি অনুযায়ী প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করার কথা রয়েছে।

এছাড়া চারটি ব্যাংকেই ২০১৪ সালের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ ‘ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম’ বা এমআইএস পদ্ধতি চালু করা হবে। আর ২০১৬ সালের মধ্যে পুরো ব্যাংকিং ব্যবস্থা এমআইএস পদ্ধতির আওতায় তথা অনলাইনের আওতায় আনার পরিকল্পনা করতে হবে।