বেসরকারি ২০ টেলিভিশন মরে যেতে পারে

0
41

TV_Coffinবিদ্যমান বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলোর বড় অংশের অবস্থা ভাল নয়। অনেকগুলোই রুগ্ন। এদের অর্ধেক শেষ পর্যন্ত মরে যেতে পারে। টিকে থাকতে এদের কোনো কোনোটি চাঁদাবাজীতে জড়িয়ে পড়তে পারে।

অ্যাসোসিয়েশন অব টেলিভিশন চ্যানেল ওনার্স (অ্যাটকো) এমন আশংকা প্রকাশ করেছে। মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সঙ্গে সাক্ষাতকালে তারা এমন আশংকা প্রকাশ করেন। চ্যানেলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখতে তারা সরকারের কাছে নীতি সহায়তা দাবি করেন। সংগঠনের সভাপতি মোসাদ্দেক আলী ফালুর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি সচিবালয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাত করেন।

উল্লেখ, এখন পর্যন্ত ৪০ টি বেসরকারি টেলিভিশনের লাইসেন্স দিয়েছে সরকার। এর একটি অংশ দেওয়া হয়েছে গত কয়েকমাসে। নতুন চ্যানেলগুলোর মধ্যে অনেকগুলো কার্যক্রম শুরুর আগেই আর্থিক সঙ্কটে পড়েছে। রাজনৈতিক যোগ্যতায় চ্যানেলের লাইসেন্স বাগিয়ে নেওয়া উদ্যোক্তাদের নিজেদের মূলধন নেই । তারা হন্যে হয়ে অংশীদার খুঁজছে।

এর আগে একই প্রতিনিধি দল বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদের সঙ্গেও সাক্ষাত করেন। তার কাছেও বিভিন্ন সমস্যা তুলে ধরে সরকারের সহায়তা চান।

অ্যাটকোর দাবির মধ্যে রয়েছে অভিনয়শিল্পীদের দ্বৈতকর প্রত্যাহার, বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছ থেকে বিল পাওয়ার পর কর দেওয়ার সুযোগ, ভারতীয় চ্যানেলের অবাধ সম্প্রচার বন্ধে ব্যবস্থা নেওয়া।

টেলিভিশন চ্যানেলগুলকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নানাভাবে হয়রানি করছে বলে অভিযোগ করেন অ্যাটকো নেতারা। এ বিষয়ে চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তা প্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, এনবিআর ১৫ বছরের কাগজপত্র ও সিডি চাচ্ছে। এত দীর্ঘ সময়ের তথ্য দেওয়া খুব সহজ নয়। একটু সময় লাগছে। কিন্তু বিষয়টি মানছে না এনবিআর। তারা গত ১৫ দিনে তিনবার চিঠি দিয়েছে। আমরা সব ধরেনর তথ্য ও নথিপত্র সরবরাহ করতে রাজী। কিন্তু এরকম আচরণ করলে নিজেদের খুবই ছোট লাগে।

অর্থমন্ত্রী সুনির্দিষ্ট কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন নি। বরং প্রতিনিধি দলকে তাদের এসব সমস্যা ও প্রস্তাব লিখিতভাবে জমা দেওয়ার পরামর্শ দেন। অন্যদিকে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বাস্তবসম্মত সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়ার চেষ্টা করবেন তিনি।