আসছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নতুন নীতিমালা

0
116

mbank-300_0মোবাইল ব্যাংকিং কার্যক্রমকে আরও নিরাপদ ও বিশ্বাসযোগ্য করার জন্য নতুন নীতিমালা করতে যাচ্ছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (বিটিআরসি)।এ লক্ষ্যে ইতোমধ্যে বিটিআরসি দুটি কমিটিও গঠন করেছে।আর বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে দেওয়া হয়েছে কিছু নির্দেশনা। শিগগিরই বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনার আলোকে এ কমিটি কাজ শুরু করবে বলে বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে।

সম্প্রতি ব্র্যাক ব্যাংকের অনলাইন ব্যাংকিং কার্যক্রম হ্যাক করে টাকা আত্নসাৎ করার ঘটনায় গ্রাহকের অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নামে বাংলাদেশ ব্যাংক। তদন্তে ব্র্যাকের অনলাইন ব্যাংকিং ব্যবস্থায় ত্রুটি ধরা পড়ে। পাশাপাশি যেহেতু অনলাইন ব্যাংকিংয়ের সাথে মোবাইল নম্বর সরাসরি জড়িত সেহেতু মোবাইল নম্বর সহজে পরিবর্তন হওয়াকে দায়ী করা হয়। এক্ষেত্রে ব্র্যাক ব্যাংকে সম্পূর্ন অটোমেটেড করার নির্দেশ দেওয়া হয়। আর বিটিআরসিকে সিম রিপ্লেসমেন্ট ও রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে নিয়ম কঠোর করার সুপারিশ করা হয়।

সুপারিশে বলা হয়, বর্তমান ব্যাংকিং ব্যবস্থায় অধিকতর আর্থিক সেবাভুক্তি মোবাইলের ওপর অনেকাংশে নির্ভরশীল। তাই গ্রাহক স্বার্থসংরক্ষণে বিটিআরসিকে মোবাইল সিম রেজিস্ট্রেশন ও রিপ্লেসমেন্টের ক্ষেত্রে প্রকৃত গ্রাহকের যথার্থতা নিশ্চিতকল্পে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করার ব্যবস্থা করতে হবে। আর রেজিস্ট্রার্ড গ্রাহকের সিম বা নম্বর অনুমোদিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নিকট হস্তান্তর বা রিইস্যু করার ফলে গ্রাহকের কোনো আর্থিক ক্ষতি হলে তা সংশ্লিষ্ট মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটরের নিকট থেকে আদায় করতে হবে বলে বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্তের সুপারিশে বলা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি সুত্র জানিয়েছে, গ্রাহকের অনলাইন ও মোবাইল ব্যাংকিং ব্যবস্থাকে আরও নিরাপদ ও শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে প্রথম দফা বাংলাদেশ ব্যাংক ও বিটিআরসি-এর সাথে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এর কিছুদিন পর ১৬ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বিটিআরসি’র প্রতিনিধি দল এবং মোবাইল অপারেটরগুলোর প্রতিনিধি দলের সাথে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিনিধি দলের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে মোবাইল ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস সংক্রান্ত কার্যক্রমের ওপর আরোপিত চার্জ হ্রাস করা, সার্ভিস প্রদানের ক্ষেত্রে গ্রাহকের সিম রেজিস্ট্রেশন ও গ্রাহক সম্পর্কে পূর্ন তথ্য জানা (কেওয়াইসি) নিশ্চিত করা, মোবাইল অপারেটর কর্তৃক আনস্ট্রাকচার সাপলিমেন্টারি সার্ভিস ডাটা (ইউএসএসডি) চ্যানেল প্রদান, সিম রিপ্লেসমেন্ট এবং মাস্কিং সংক্রান্ত বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করা হয়।

সূত্র জানিয়েছে, এসব আলাচনায় বিটিআরসি এবং মোবাইল অপারেটরগুলোর পক্ষ থেকে মোবাইল ব্যাংকিংকে আরও নিরাপদ ও সহজ করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে আশ্বস্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বিটিআরসি’র এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে অর্থসূচককে বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে বৈঠকের পর এবং তাদের সুপারিশগুলোকে আমলে নিয়ে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য দুটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর একটি কমিটি অপারটেরগুলোর সাথে এবং অপর কমিটি গ্রাহকদের পূর্ণ তথ্য (কেওয়াইসি) নিশ্চিতকরণ নিয়ে কাজ করবে।

তিনি আরও জানান, একটি কমিটি নির্বাচন কমিশনের কাছে দেশের জনগণের জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য চাইবে। নির্বাচন কমিশন এ তথ্য দিতে সম্মত হলে তার প্রেক্ষিতে মোবাইল ব্যাংকিং  চালু থাকা সিমগুলোকে পুনরায় রেজিস্ট্রেশন করা হবে। তাছাড়া বিটিআরসি’র পক্ষ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং চালু থাকা নম্বর রিপ্লেসমেন্টের ক্ষেত্রে কিছু নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য অপারেটরগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সাল শেষে দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজারে। আর ডিসেম্বর শেষে ৬ হাজার ৬৪২ কোটি ৬১ লাখ টাকা লেনদেন হয়েছে ৩ কোটি ১৩ লাখ ৬২ হাজার ৮৯৫ টি লেনদেনের মাধ্যমে। এক বছরের ব্যবধানে দেশে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহক সংখ্যা বেড়েছে ২৬২ শতাংশ এবং এজেন্ট সংখ্যা বেড়েছে ২১৭ শতাংশ।