আমবাগান কেটে আবাসনের পরিকল্পনা, প্রতিবাদে মানববন্ধন

0
31
rajshahi
রাজশাহীর মানচিত্র

rajshahiরাজশাহীর উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে মহানগরীর রায়পাড়ায় প্রায় ৪০ বিঘা আমবাগান ধ্বংস করে বাণিজ্যিকভাবে আবাসিক প্রকল্প গ্রহণের অভিযোগ উঠেছে। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় মহানগরীর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) ও রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদ।

সমাবেশে রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও বাপা রাজশাহী মহানগর কমিটির সমন্বয়ক জামাত খানের সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন- রাজশাহী রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি লিয়াকত আলী, পরিবেশ আইনজীবী সমিতি বেলার সমন্বয়ক তন্ময় সান্যাল, অ্যাডভোকেট শাহাবুল আলুম, দেবাশিষ প্রামাণিক দেবু, তবিবুর রহমান মাসুম, শিশু সংগঠক রজব আলী,  অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর, আইয়ুব আলী তালকদার, নারী নেত্রী শাহানাজ পারভীন সাগরী প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা আরডিএ কর্তৃপক্ষকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, আমবাগান অধিগ্রহণ করে আবাসিক প্রকল্পের যে পরিকল্পনা করা হয়েছে তা থেকে সরে না আসলে সাধারণ মানুষের সম্পদ ও পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। প্রয়োজনে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী আমবাগানটি রক্ষায়  লাগাতার ধর্মঘটের ডাকা দেওয়া হবে।

বক্তারা আরও বলেন, ৪০ বিঘা জমির ওই আমবাগানটিতে অন্তত চার শতাধিক আমগাছ রয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ১০০ বছরেরও পুরনো আম গাছও।সুদুর প্রসারী ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ইতমধ্যে আরডিএর কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা নামে ও বেনামে বাইপাস সংলগ্ন উত্তরপাড়ের জমি নামমাত্র মূল্যে ক্রয় করেছে। তাদের মনে করে আরডিএর আবাসিক প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে তারা কোটিপতি হয়ে যাবেন। কিন্ত রাজশাহীবাসী সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হতে দেবে না।

জানা গেছে, সিটি বাইপাস ও রাজশাহী বাইপাসের মধ্যবর্তী কাশিয়াডাঙ্গা মোড় সংলগ্ন গোয়ালপাড়া মৌজার সায়েরগাছা (রায়পাড়া নামে পরিচিত) এলাকার ৪০ বিঘা জমির ৪০০ বেশি আমগাছ কেটে ফেলে আরডিএ সেখানে আবাসিক প্রকল্প গ্রহণ করেছে।

ঐ এলাকায় আম বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করেন বাগান মালিকরা। তারা বলেন, আম-লিচু বাগান ধ্বংস করে সেখানে আবাসন প্রকল্প মেনে নেবে না তারা। এ সময় তারা আবাসিক প্রকল্প বন্ধের দাবি জানিয়েছে।

এ বিষয়ে আরডিএর চেয়ারম্যান আব্দুস সামাদ বলেন, আরডিএ বেশ কয়েকটি আবাসিক প্রকল্প গ্রহণ করেছে। তবে রায়পাড়ায় এ ধরনের কোনো প্রকল্প নেওয়া হয়েছে কি না তা এ মুহূর্তে ঠিক বলা যাচ্ছে না।

কেএফ