আমদানিতে ডেলিভারি চার্জ বাড়লো ৭৫ শতাংশ

0
100
Container_Port
চট্টগ্রাম বন্দর (ফাইল ছবি)

Container_Portপণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ৭৫ শাতংশের বেশী ডেলিভারি চার্জ বাড়ালো বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার এসোসিয়েশন (বাফা)। গত ১ লা র্ফেরুয়ারি বাফার এ সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার পর থেকে চট্টগ্রামের বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংঘঠন ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।

জানাযায়, গেল বছরের সেপ্টেম্বরে বাফা আমদানি পণ্যের ডেলিভারির ক্ষেত্রে ২ হাজার টাকা এনওসি (অনাপত্তি ছাড়পত্র) চার্জের পরিবর্তে সাড়ে তিন হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়। পরবর্তীতে নৌ মন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক ৩০শে নভেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করা হয় এবং পরবর্তীতে বাফার সংলিষ্ট মন্ত্রণালয়, এনবিআর ও স্টেকহোল্ডারদের সমন্বয়ে সর্বসম্মতিক্রমে একটি সিদ্ধান্তে আসার কথা বলা হয়। কিন্তু গেল দুই মাসে কোন সিদ্ধান্তমূলক কোন সভার আয়োজন না করে বাফার এমন সিদ্ধান্ত নেওয়াকে মনগড়া, একতরফা ও অযুক্তিক বলে দাবী করছেন সংলিষ্টরা।

চিটাগং চেম্বার্সের সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, বাফার এমন সিন্ধান্ত বাস্তবায়ন হলে সবধরনের পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ার পাশাপাশি  কনটেইনার ডেলিভারিতে অচলাবস্থা সৃষ্টি হবে। ফলে বন্দর থেকে রাজস্ব আদায় এবং পণ্য ডেলিভারির দীর্ঘদিন ধরে চলা নিবিড় কার্যক্রম ব্যাহত হবে।

তিনি আরো বলেন, বিগত কয়েক মাস ধরে রাজনৈতিক অস্থিরতার ফলে দেশের সার্বিক আমদানি-রপ্তানি, শিল্পোৎপাদন এবং অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে যে নেতিবাচক পরিস্থিতি বিরাজ করছে তা থেকে উত্তরণের এই সন্ধিক্ষণে এনওসি চার্জ বৃদ্ধির এক তরফা উদ্যোগ দেশের অর্থনীতিকে আবারও শংকার মধ্যে ফেলে দিবে। তাই এনবিআর, স্টেকহোল্ডার ও বাফার সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সমন্বিত সিদ্ধান্ত না হওয়া পর্যন্ত চার্জ আদায় স্থগিতের নির্দেশ দেওয়ার জন্য বোর্ড চেয়ারম্যানের হস্তক্ষেপ জরুরী বলে জানান তিনি।

বাফার এমন সিদ্ধান্তে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে পোশাক রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠান বিজিএমইএ এই ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে চট্টগ্রাম কাস্টমস কমিশনারকে লিখিতভাবে অনুরোধ জানান।

লিখিত অনুরোধে বলা হয়, বাফা এর আগেও এমন একতরফা বর্ধিত চার্জ আদায়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। স্টেকহোল্ডারদের দাবির পরিপেক্ষিতে তা বাতিল করে পরবর্তীতে নতুন করে সিন্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে সংলিষ্ট সকলের উপস্থিতিতে বৈঠকের কথা বলা হয়।

বর্তমনে পোশাক শিল্পে চলা নানান সংকটের মধ্যে এমন বাড়তি চার্জ আদায় হলে আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় এ শিল্প তার সক্ষমতা হারিয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

বাংলাদেশ ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার্স এসোসিয়েশনের পরিচালক খায়রুল আলশ বলেনবর্ধিত চার্জ ৩০ শে নভেম্বর পর্যন্ত স্থগিত করা হয়। পরবর্তীতে আলোচ্য বিষয়ে বৈঠক করার কথা থাকলেও কয়েক দফা বৈঠকের আহবান করা হলেও  সংলিষ্ট সকলকে এক সাথে না পাওয়ায় তা হয়নি। সম্প্রতি আনুষঙ্গিক নানা ধরনের ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় আয়-ব্যয়ের ভারসাম্য রাখতে না পেরে ইতোমধ্যে বেশ কয়েকটি ফ্রেইট ফরওয়ার্ডার্স প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থায় অস্তিত্ত্ব রক্ষায় ফ্রেইট ফরওয়ার্ডর্সকে আমদানি পর্যায়ে ডেলিভারি চার্জ বাড়ানো হয়েছে।

তবে তা সাড়ে তিন হাজার টাক ফিক্সড করা হয়নি। কেউ চায়লে সংলিষ্ট প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সমঝোতা করে তা কমাতে পারবেন বলেও তিনি জানান।# এমদাদ সুমন ০৩/০২/১৩