রেমিটেন্সে ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত

0
42

Worker_Dollarবছরের শুরুতে কিছুটা ঘুরে দাঁড়িয়েছে রেমিটেন্স (প্রবাসি আয়) প্রবাহ। বেশ কয়েক মাসের নিম্নমুখী ধারার পর জানুয়ারি মাসে ফের বেড়েছে রেমিট্যান্স প্রবাহ। এ মাসে আগের মাসের (ডিসেম্বর’১৩) তুলনায় ৩ কোটি ৯৮ লাখ মার্কিন ডলার বেশি রেমিটেন্স এসেছে। আর নভেম্বরের তুলনায় রেমিটেন্সে বেশি এসেছে ১৮ কোটি ৮৫ লাখ ডলার। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, চলতি অর্থবছরের মাঝামঝিতে রেমিটেন্স প্রবাহে কিছুটা ভাটা পড়ে। কিন্তু শেষ দুই মাসে রেমিটেন্স প্রবাহের উর্ধ্বমুখী ধারা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ায় প্রবাসিরা বেশি রেমিটেন্স পাঠাচ্ছে বলে মনে করেন তারা।
প্রতিবেদন অনুযায়ী, জানুয়ারি মাসে রেমিটেন্স এসেছে ১২৫ কোটি ডলার। আর ডিসেম্বরে রেমিটেন্স এসেছিল ১২১ কোটি ২ লাখ ডলার। এর আগে নভেম্বর মাসে রেমিটেন্স এসেছে ১০৬ কোটি ১৪ লাখ ডলার।
জানুয়ারি মাসে আসা এ রেমিটেন্স চলতি অর্থবছরের গত ছয় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, জানুয়ারিতে রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন চারটি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ৩৮ কোটি ৭৬ লাখ মার্কিন ডলার। বিশেষায়িত চারটি ব্যাংকের মাধ্যমে এক কোটি ৫৯ লাখ মার্কিন ডলার। ৩৫টি বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে ৮৩ কোটি ২২ লাখ মার্কিন ডলার এবং বিদেশি ৯টি ব্যাংকের মাধ্যমে এসেছে এক কোটি ৪২ লাখ মার্কিন ডলার।
আলোচ্য সময়ে প্রবাসিদের পাঠানো রেমিটেন্স সব চেয়ে বেশি এসেছে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের মাধ্যমে। ব্যাংকটির মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ৩৩ কোটি ৩৫ লাখ মার্কিন ডলার। এরপরের অবস্থান রাষ্ট্রায়াত্ত্ব অগ্রণী ব্যাংকের। প্রবাসিরা ১৪ কোটি ৪৬ লাখ মার্কিন ডলারের রেমিটেন্স পাঠিয়েছে ব্যাংকটির মাধ্যমে। তৃতীয় অবস্থানে থাকা সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ১২ কোটি ৫ লাখ মার্কিন ডলার। আর জনতা ব্যাংকের মাধ্যমে রেমিটেন্স এসেছে ১০ কোটি ৭৮ লাখ মার্কিন ডলার।
বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলেছেন, উন্নয়নশীল দেশের অর্থনীতির একটি প্রধান চালিকা শক্তি হলো রেমিটেন্স (প্রবাসি আয়)। গত বছর জনশক্তি রপ্তানি কিছুটা কমে যাওয়ায় রেমিটেন্স প্রবাহে ভাটা পড়ে। কিন্তু বছরের প্রথম মাসে রেমিটেন্সের ভাল প্রবাহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যদি বিদেশে জনশক্তি রপ্তানি না বাড়ানো যায় তাহলে রেমিটেন্সের প্রবৃদ্ধি বাড়বে না বলে জানান তারা।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের তথ্যে দেখা গেছে, ২০১১-১২ অর্থবছরে রেমিটেন্সের পরিমাণ ছিল ১ হাজার ২৮৪ কোটি ডলার। ২০১২-১৩ অর্থবছরে এর পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৪৪৬ কোটি ডলারে।
এসএই/