লঙ্কা-বাংলার হাত ধরে বাজারের পথে ছয় আইপিও

0
39

Peninsula_CuttingEdge_Amanলঙ্কা-বাংলা ইনভেস্টমেন্টের হাত ধরে পুঁজিবাজারে আসার আপেক্ষায় আছে বস্ত্র ও জ্বালানি,খাদ্য, সিমেন্ট  ও সেবা খাতের ছয় কোম্পানি। প্রাথমিক গণ প্রস্তাবের (আইপিও) মাধ্যমে বাজারে শেয়ার ছেড়ে মূলধন সংগ্রহে আগ্রহী এরা। কোম্পানির ছয়টি হচ্ছে-ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেড , হোটেল পেনিনসুলা চিটাগং লিমিটেড, আমান ফুড, আমান সিমেন্ট, আমান কটন ফেব্রিক্স এবং কাটিং এজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড।

কোম্পানি ছয়টি বাজার থেকে প্রায় ৮৮৩ কোটি টাকা সংগ্রহ করতে চায়। তবে সব কিছুই নির্ভর করবে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) অনুমোদনের উপর। কোম্পানি ছয়টির ইস্যু ম্যানেজার লঙ্কা-বাংলা ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেড ইতোমধ্যে তাদের খসড়া প্রসপেক্টাস বিএসইসিতে জমা দিয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
জানা যায়, কোম্পানি ছয়টির মধ্যে ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণ ও প্ল্যান্ট সরবরাহের ব্যবসা করে থাকে। আর হোটেল পেনিনসুলা চিটাগং লিমিটেড একটি থ্রি-স্টার হোটেল, আমান ফিড খাদ্য খাতের, আমান সিমেন্ট মিল সিমেন্ট উৎপাদন করে, আমান কটন ফেব্রিক্স পোশাকের তৈরি করে থাকে। আর আরেকটি হলো কাটিং এজ লিমিটেড।

ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন লিমিটেড পুঁজিবাজারে আসছে বুক বিল্ডিং পদ্ধতির মাধ্যমে। বাকী পাঁচটি আইপিও আসবে ফিক্সড প্রাইস বা নির্ধারিত মূল্য পদ্ধতির আওতায়।

জানা যায়, ইউনাইটেড পাওয়ার জেনারেশন ৬০ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির জন্য আবেদন করেছে। এ কোম্পানিটি তিন কোটি ৩০ লাখ শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে ১৯৮ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।
এদিকে হোটেল পেনিনসুলা চিটাগং লিমিটেড ২০ টাকা প্রিমিয়ামে শেয়ার বিক্রির আবেদন করেছে। দশ টাকা অভিহিত মূল্যসহ শেয়ারের প্রস্তাবিত বিক্রি মূল্য ৩০ টাকা। বিএসইসির অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি পাঁচ কোটি ৫০ লাখ শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ১৬৫ কোটি টাকা।

আমান ফিড আইপিও’র মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৭২ কোটি টাকা। দুই কোটি শেয়ার ইস্যুর তারা এ টাকা সংগ্রহ করবে। এ জন্য কোম্পানিটি ২৬ টাকা প্রিমিয়ামসহ ৩৬ টাকা দরে শেয়ার বিক্রির অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছে। বিএসইসি অনুমোদন দিলে কোম্পানিগুলো বাজারে শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে টাকা সংগ্রহের কার্যক্রম শুরু করবে।
আমান সিমেন্ট ২০ টাকা প্রিমিয়ামে শেয়ার বিক্রির আবেদন করেছে। দশ টাকা অভিহিত মূল্যসহ শেয়ারের প্রস্তাবিত বিক্রি মূল্য ৩০ টাকা। বিএসইসি অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি ১ কোটি ২০ লাখ শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৩৬০ কোটি টাকা।

৩০ টাকা প্রিমিয়ামে শেয়ার বিক্রির আবেদন করেছে আমান কটন ফেব্রিক্স। দশ টাকা অভিহিত মূল্যসহ শেয়ারের প্রস্তাবিত বিক্রি মূল্য ৪০ টাকা। বিএসইসি অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি দুই কোটি ১০ লাখ শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে ৮৪ কোটি টাকা।

আর কাটিং এজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড পাঁচ টাকা প্রিমিয়ামে শেয়ার বিক্রির আবেদন করেছে। দশ টাকা অভিহিত মূল্যসহ শেয়ারের প্রস্তাবিত বিক্রি মূল্য ১৫ টাকা। বিএসইসি অনুমোদন পেলে এ কোম্পানি ৩০ লাখ শেয়ার ইস্যু করবে। আর এর মাধ্যমে বাজার থেকে সংগ্রহ করবে চার কোটি ৫০ লাখ টাকা।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে লঙ্কা-বাংলা ইনভেস্টমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এম শাকিল ভুঁইয়া অর্থসূচককে বলেন, আমরা বিএসইসিতে প্রতিষ্ঠান ছয়টির আইপিও’র প্রসপেক্টাস জমা দিয়েছি। কমিশনের আনুমোদন পেলে কোম্পানিগুলো বাজার থেকে মূলধন সংগ্রহ করতে পারবে।

জিইউ